বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

সেই শুধু পারে

  • advertisement

    হাত কেটে গেছে কফিনের কাঁচে, হৃদয় পুড়েছে আঁচে
    তার পরও কেউ কাছে এসে যদি মুহূর্তকাল যাঁচে
    উষ্ণ প্রণয়, কিছু বরাভয়, কিছুটা আবেগী রেতে
    দিয়ে দিতে কিছু পরামুখ নই, যতটা তলানি আছে

     

    মুখ পুড়ে গেছে নিজের আগুনে, হনুমানই বলে লোকে
    কুৎসিত এই আদল ঢেকেছি সহিষ্ণু- নির্মোকে
    সব অভিযোগ, সব উত্তাপ- ক্ষোভ নিই মাথা পেতে
    আড়ষ্ট ঠোঁট কেঁপে কেঁপে ওঠে, প্রতি পানে, প্রতি ঢোকে

     

    তার ছিঁড়ে গেছে, সেতারে জমেছে সময়ের ধুলোবালি
    কিছুই জোড়ে না, যতই প্রলেপ- যত রিপু, যত তালি
    পুষ্প ছড়ানো আঙুল কাঁটায় বিক্ষত- দ্বিধাহত
    বাগান উজাড়, ঘাসে পড়ে থাকি- পরাস্ত একা মালি

     

    দিয়ে দিতে তবু পরামুখ নই, নির্ভার হই দিয়ে
    পলকা শরীর আকাশের স্রোতে ঘুড়িসম দি উড়িয়ে
    শুধু যার হাতে নাটাইয়ের টান- অদৃশ্য নীল সুতো
    শুধু যার চোখে সুনীল দহন- পুড়িয়ে পুড়িয়ে

     

    মারে। সেই শুধু পারে অলোকলতায় ফেরাতে- রাংতা মুড়ে
    সেই শুধু পারে আবীর ছড়াতে- অনন্ত পথ জুড়ে

advertisement

  • সাইফুল করীম
    সাইফুল করীম কুৎসিত এই আদল ঢেকেছি সহিষ্ণু- নির্মোকে- ভাই এখানে নির্মোকে-র মানে টা বুঝলাম না। আর শেষের ২ লাইনের প্রথমে আগের বাক্যের "মারে" টেনে নিয়ে আসলেন কেন বুঝলাম না।--কবিতা ভালো লেগেছে, একটু অযাচিত হস্তক্ষেপ করলাম-কিছু মনে করবেন না আশা করি।
    প্রত্যুত্তর . ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
    • লুতফুল বারি পান্না ধন্যবাদ অভিধান খুললেই নির্মোক শব্দের অর্থটা পেয়ে যেতেন। নির্মোক হল মোড়ক। শেষের ওটা স্রেফ অন্ত্যমিলের ধারাটা ধরে রাখার জন্য।
      ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
    • লুতফুল বারি পান্না আর কোন প্রশ্ন থাকলেও করে ফেলতে পারেন। মনে করার প্রশ্নই ওঠে না। বরং এতে তো লেখকরা খুশী হয় বলেই জানি।
      ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
    • সাইফুল করীম দিয়ে দিতে তবু পরামুখ নই, নির্ভার হই দিয়ে পলকা শরীর আকাশের স্রোতে ঘুড়িসম দি উড়িয়ে শুধু যার হাতে নাটাইয়ের টান- অদৃশ্য নীল সুতো শুধু যার চোখে সুনীল দহন- পুড়িয়ে পুড়িয়ে// এখানে যদি "মারে" এক লাইনে বসাতেন-তাহলে হয়তো ছন্দমিলের অসুবিধা হত না। কারণ ছন্দের অন্তে "এ"-প্রত্যয় যুক্ত আছে কিন্তু "দিয়ে" আর "মারে" দুটোতেই। আর ধ্বনির বর্ণ ভিত্তিক বিন্যাসও কিন্তু এতে হেরফের হয়না তেমন (২১-২০) হয়। আর নিচের ২ লাইন তো তাহলে ২০-২০ বর্ণের ব্যঞ্জণায় খুব ভাল ভাবে মিলে যায়। অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে।
      ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
    • লুতফুল বারি পান্না ধন্যবাদ। কিছু নিয়ম- নিয়ম ভেঙে তৈরী করতে খুব ভাল লাগে আমার। আমার বেশীরভাগ কবিতাই নিয়ম ভাঙার নিয়মরে ভাই।
      ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১২
  • সূর্য
    সূর্য সুন্দর কবিতা। যেটুকু প্রশ্ন করার তার উত্তর মন্তব্যে পেয়ে গেলাম। অনেক অনেক শুভকামনা বন্ধু।........ ☼
    প্রত্যুত্তর . ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১২