এ মাসে (নতুন সংখ্যায়) কোন লেখা জমা দিতে পারিনি বলে কিছু বন্ধু অনুযোগ করেছেন। তাই ব্লগে এ লেখাটা দিলাম।

 

কথা মালা শেষ হলে

আহমেদ সাবের

 

কথা মালা শেষ হলে, বৃক্ষমূলে পড়ে থাকে শুধু

এতটুকু জীর্ণ ধুলা, কিছু ছেড়া অশ্বত্থের পাতা,

বিরাগী ইথারে ভাসে বিমুক্ত নিঃশ্বাস, কিছু শব্দ -

সযত্নে রচনা করে সুখ কিংবা দুঃখের পাঁচালী।



রক্তিম আক্ষেপ জ্বলে পলাশের রঙ, হিংসার সবুজ।

কিছু কিছু ভালবাসা, জ্বলে যায় জোনাকীর মত

অথবা সন্ধ্যার তারা, আকাশের কালো প্রেক্ষাপটে।

কখনো বিষাদ নামে, ব্ল্যাক হোল - কালোর গহ্বর ।



অশ্বের ক্ষুরের চিহ্ন, কদাচিৎ রেখে যায় বিবাগী তাতার

শব্দহীন কথকতা, বিমূর্ত বর্ণনা - নীরবতা ঝরে যায়,

ঝরে যায় শিশিরের মত। তবু তার চোখের তারায়

সুদীপ্ত অতীত জ্বলে ইস্পাতের ফলা, বর্তমান বিবর্ণ শালিক।



নক্ষত্র বিবাগী কেউ, রেখে যায় ভুল করে ভুল বৃক্ষ তলে

হৃদয়ের বোবা কান্না - এক গুচ্ছ রক্তিম পলাশ।

অদৃশ্য নক্ষত্র থেকে একদিন উচ্চকিত শব্দের মোড়কে

দুপুরের রোদে নামে, ক্ষিপ্রগতি চঞ্চল স্যাটেল।

 

 

 

সিডনী - জুন ২৫, ২০১০