"শাস্তি"

অনেক কষ্ট পেয়েছি;
আমাকে আর শাস্তি দিও না।

ক্ষণিকের শিশির বিন্দুর মত
উবে গেছে আমার সব রাগ, অহঙ্কার।
আমি শুধু মরিচীকা হয়ে মিশে আছি
কালো পিচের এক বৈচিত্র্যহীন রাস্তায়,
আমি আর আমার একাকীত্ব
সব ভেঙ্গে চুরে আজ চুরমার।

আমার চোখে এখন তো আর অশ্রু নেই
সব শুকিয়ে গেছে।
রাস্তা থেকে বনে বনে, আমি তোমাকে খুঁজে বেড়াই।
এখন আর আগের মত শক্তি নেই,
অনেক দূর্বল হয়ে গেছি-
কপাল বেয়ে ফোঁটা ফোঁটা ঘাম ধরে পড়ে
তবুও আমি হেঁটে যাই।
মনে হয় এই বুঝি পথের শেষ হল-
এই বুঝি তোমাকে দেখতে পাবো।
পথের শেষ হয়, কিন্তু সেখানেও তুমি নেই।
আমি অন্য পথ ধরে চলি-
যদি তোমার দেখা সেথা পাই।

চোখেও এখন আগের মত আর দেখি না,
রোদে তাকাতে কষ্ট হয়।
আমি সেই গাছটি খুঁজে বের করেছি।
যেখানে তুমি আঁচড় কেটে চিহ্ন দিয়ে রেখেছিলে।
সেই গাছটাও আগের মত নেই।
খুঁজে পেলাম না, তোমার সেই আঁচড়ের দাগ।
বুক চীরে বেরিয়ে এলো এক দীর্ঘশ্বাস-
সাথে কিছু পোড়া মাংসের গন্ধ।
রাস্তার উপরে হুমড়ি খেয়ে পড়ে গেলাম-
কেউ ফিরেও চাইলো না।

অনেক কষ্ট পেয়েছি;
আমাকে আর শাস্তি দিও না।

২৬/০২/২০১২