# # নাস্তিক হওয়া অত সহজ কথা নয়--- । এর জন্য অনেক সাধনা লাগে । তবে নকল নাস্তিক বা সৌখিন নাস্তিক ---এটা ভিন্ন ব্যাপার । একজন খাঁটি নাস্তিক অনেক অনেক ভাল হতে পারে ।তার কাছ থেকে অনেক জ্ঞান পাওয়া যেতে পারে । এমন কি ধর্মীয় জ্ঞান---! = এটা একটা সত্য ঘটনা ---আশির দশকে এক ইউনিভর্সিটিতে দু্ বন্ধু । খুব মিল । একজন আস্তিক---আর একজন নাস্তিক । নাস্তিক বন্ধু বলে বেড়াতো---দেয়ার ইজ নো গড । কিন্তু এই কথাকে অতিমাত্রায় যুক্তির ছকে ফেলবার জন্য তাকে অনেক বই পড়তে হতো---অনেক চিন্তা করতে হতো---এমনকি বিভিন্ন ধর্মের বইও পড়তে হতো । আস্তিক বন্ধু বলে বেড়াতো ---স্রষ্টা আছে । স্রষ্টার অস্তিত্ব ও কার্যাবলী প্রচারের জন্য তার অনেক যুক্তির দরকার হতো । সে নাস্তিক বন্ধুর কাছ থেকে ---, এ ব্যাপারে---, যুক্তি চাইতো । আর নাস্তিক বন্ধুও তাকে অন্যন্য অনেকের চেয়ে অনেক সুন্দুর ও শক্তাশালি যুক্তি দিতে পারতো । স্রষ্টা সম্পর্কে তার ধর্মীয় জ্ঞান অবাক করার মত । কিন্তু এরপরেও দর্শণ ও অন্যান্য যুক্তিবাদী চিন্তা তাকে নাস্তিকতার দিকে এগিয়ে নিয়ে গেছে । সে যদি কখনো আস্তিক হয় ---, তাহলে অনেক খাটি আঁস্তিক হওয়ার সম্ভাবনা তার মধ্যে আছে । = কাজেই  স্রষ্টা--, নবী---, এনসান ও ধর্ম ---এই ব্যাপার গুলোকে মানুষের বহুরুপ চিন্তাচেতনার আলোকে আলাদা আলাদা ভাবে রেখে দেয়া উচিত । নিজ নিজ অবস্থান থেকে স্রষ্টার সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের ব্যাপারটা নিয়ে ভাবা দরকার ।