দুঃখ দেবে? দাও দুঃখ।
কষ্ট দেবে? দাও কষ্ট।
কত দেবে দুঃখ, কষ্ট দেবে কত? দেবার মত আছে কত তোমার?

দাও না যত আছে তোমার ঝোলাঝুলিতে, সব নেবো শুষে।

লাল দুঃখ, নীল দুঃখ, হলুদ-সবুজ-সাদা দুঃখ।
গোলাপীটা রেখে দাও, ওটা তোমার প্রিয় সুখ।
রংধনুর সুনিপুণ দুঃখগুলো দাও না সখি।

দাও বৃষ্টির দুঃখ, বানের দুঃখ, খরার দুঃখ,
মেঘের দুঃখ, রোদের দুঃখ, শিশিরের দুঃখ দাও।
শিশির ভেজা সকালের দুঃখ দাও, দাও যত রোদেলা দুপুরের দুঃখ,
নরোম বিকেলের দুঃখ দাও, গোধুলির দুঃখে রাঙাও আমায়।

দাও আমায় কারু কষ্ট, চারু কষ্ট, ধ্রুপদী সংগীতের কষ্টগুলো দাও।
ভৈরবী-মালকোশ-পাহাড়ী-দরবারী, রাগ রাগেশ্বরীর মূর্ছনার কষ্ট।

হাতের কষ্ট, আঙ্গুলের কষ্ট, নখের কষ্ট,
আমার বর্ধিত হাত ফিরিয়ে দেবার করুন কষ্ট।
কষ্ট দাও, দাও কষ্ট।
চোখের কষ্ট, ঠোঁটের কষ্ট, গ্রীবার কষ্ট,
তোমার নাকফুলটার হীরক কষ্ট। তোমার ভোলা-ভালা মনের কষ্ট।

দাও তোমার কথার কষ্ট, গুনগুনানি গানের কষ্ট।
জলের কষ্ট, জলশুন্য নদীর কষ্ট,
রাত জাগা পাখির কষ্ট, কাক ডাকা ভোরের কষ্ট,
জোনাক জ্বলা রাতের কষ্ট।

কষ্ট তুমি দেবে কত? দেবার মতো আছে কত?
কষ্ট দিয়ে তিষ্ঠ তুমি,
কষ্ট পেয়ে তিষ্ঠ আমি। কষ্টের নেশায় মত্ত আমি।

দুঃখ তুমি দেবে তাই বাড়িয়ে রাখি এ দু’টি হাত,
দাওনা দুঃখ, আরও কষ্ট। তোমার কষ্ট পেয়ে বেঁচে যাই।

শুধু কষ্ট দেয় না আমার কবিতারা!
ওরা আমায় বড় আদরে রাখে, উষ্ণতার চাদরে আমায় জড়িয়ে রাখে।
সোহাগে সঙ্গমে রাখে আমায় পরম স্বর্গ সুখে।
আহ্‌ কবিতা! এসো তোমায় চুমি!