ঝরে যাওয়া ফুল নয়
বাদারের পায়েহাটা পথে, কাপড়ের খাঁজে বিদ্ধহয়ে থাকা চোরকাঁটা’র মত
বুকের খাঁজে গেঁথে থাকা কষ্ট গুলো কে নিয়ে গাঁথি যাপিত জীবনের বিচরণ মালা।
এফোঁড়-ওফোঁড় হয়ে ঝুলে আছে সব অন্তরের আভরণ হয়ে থাকা আবেগের খাঁজে
তুলে ফেললেই যেন গল গল করে বেরিয়ে আসবে
কোষে কোষে প্রাণ হয়ে থাকা সেই অমূল্য জীবন তরল।
প্রাপ্তি গুলো‘ভুই আকড়া’র লতা থেকেও ক্ষুদ্র তর হতে হতে
হয়ে যায় মাটির সাথে মিশে যাওয়া ধুলি ধুসর ‘ঘুটে’ আর
সপ্ন গুলো বর্ণিল পাপড়ি মেলে অসংখ্য সুচালো কন্ঠ কে ঘিরে থাকা
নাগালের বাইরে আকাশের দিকে প্রলম্বিত মরু কেকটাসের ফুল যেন।
বোবা কান্নায় ছটফট বুক,অষ্ফুট বেদনায় টল টলে বিষ্ফারিত চোখ
তবুও একেকটা চোর কাঁটা যেন সুঁচ হয়ে পেছনের ছিদ্রে ঢুকিয়ে রাখা
অদৃশ্য শক্ত সুতোর প্রক্ষেপনে বার বার এফোঁড়-ওফোঁড় করে চলে গিয়ে
ঠোঁঠ দুটোকে বানিয়ে ফেলে একটা কাপড়ের সেলাই করা ভাঁজ,
যেন অনেক কষ্টে আগলে রাখা ব্যাথা পাওয়ার শব্দ,যদি না ফসকে বেরিয়ে যায়।
তবুও ভাবি সবইতো আমার
এই একুশ আমার, এই মার্চ আমার, এই ডিসেম্বর আমার
এই আকাশ আমার, এই পাহাড় আমার, এই নদী আমার, এই সবুজ বন আমার আর
তারও পাড়ের পূব দিকে উঠে আসা ভোরের লাল সূর্যটা,ওটাও যেন আমার হয়।
এই প্রতিক্ষায় সেই দিকে তাকিয়ে বোতাম খুলে বুকটা মেলে ধরি কষ্টদের কাছে
ওরা যেন আমার সুখ হয়…।