লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২৬ অক্টোবর ১৯৮৬
গল্প/কবিতা: ৩টি

সমন্বিত স্কোর

৩.১

বিচারক স্কোরঃ ১.৬৩ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৪৭ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftঈর্ষা (জানুয়ারী ২০১৩)

কোরবানির হাট, জীবন ও বাস্তবতা
ঈর্ষা

সংখ্যা

মোট ভোট ২২ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৩.১

মো: আশরাফুজ্জামান

comment ২৮  favorite ৩  import_contacts ১,১৪৮
ভাই আসেন, আসেন না, মুখ উচু করে তাকাই। কতো সরলতা, নিজেকে প্রশ্ন করি, এমন কেন হয়? লিখতে ইচ্ছা হয়না, কি লিখব? ভালো লাগছে না, তবুও লিখছি, কেন জানিনা। জানো তোমরা, কোরবানির হাটে যাচ্ছিলাম, পথের পাশে আর্তনাদ, ভাই আসেন, আসেন না। কি অসহায় আর্তনাদ, জীবনের কি নির্মম পরিহাস। কোরবানির হাটে যেমন গরু, ছাগল, বেচার জন্য ডাক দেয়, তেমনি এই মানুষগুলো নিজেকে বিলিয়ে (বেচে) দেয় জীবন বাঁচানোর জন্য। তাদের কোন দোষ নেই। সমাজ তাদের এই বৃত্তে বন্দি করে দিয়েছে। কতো নিষ্পাপ তাদের চোখ, কতো কোমলতা তাদের ডাকে।
কোন এক পাষণ্ড মানুষের হাত ধরে সুখের সাগর পারি দেয়ার আশায় নয়তবা পেট বাঁচানোর তাগিদে এই শহরে এসেছিলো। সে কি জানতো, তাকে এনে পাষণ্ড মানুষটা মেলে ধরবে কোরবানির হাটের পশুর মতো। টাকার জন্য সে এই পেশায় আসেনি। জোর করে তাকে আসতে বাধ্য করা হয়েছে। সমাজের ভয়ে সে আর বের হতে পারেনি। আর তারপর অত্যাচার, নির্যাতন, এক সময় মানিয়ে চলা। কিন্তু তারপর, পরবর্তী প্রজন্ম, তাদের কি হচ্ছে? ঘৃণা, লাঞ্ছনার মধ্যে বেড়ে উঠা, নিজেকে বিসর্জন করা। তাদের না পারি, তাদের পরবর্তী প্রজন্মকে কি আমরা শিক্ষার আলো দিয়ে এই বৃত্ত থেকে বার করে আনতে পারিনা!

আমরা মানুষ, যাদের নিয়ে অন্ধকারে ফুর্তি করি, দিনের আলোয় তারাই হয়ে উঠে ঘৃণার বস্তু। মানুষ হিসেবে তাদেরকে কল্পনা করতে পারিনা, আমাদের বিবেক, মনুষ্যত্ব যেন থমকে যায়। জীবনের উপহাস, পরিনতি, এভাবেই কি থমকে দাড়ায়? হয়তবা! একদিন পূর্ণিমার আলো হয়ত তাদেরকেও স্পর্শ করবে, একি চাঁদের আলোয় হাতে হাত রেখে আমরা নতুন পৃথিবী সাজাবো। স্বপ্ন দেখতে বড্ড বেশি ভালোবাসি।

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • মো: আশরাফুজ্জামান
    মো: আশরাফুজ্জামান ধন্যবাদ, দোলন আপু...
    প্রত্যুত্তর . ১৫ জানুয়ারী, ২০১৩
  • আহমেদ সাবের
    আহমেদ সাবের "আমরা মানুষ, যাদের নিয়ে অন্ধকারে ফুর্তি করি, দিনের আলোয় তারাই হয়ে উঠে ঘৃণার বস্তু। " - সামাজিক একটা সমস্যা নিয়ে প্রবন্ধ / গল্পটা অনেক প্রশ্ন নিয়ে চোখের সামনে দাঁড়িয়েছে। তবু লেখকের মতো স্বপ্ন দেখি একদিন "একই চাঁদের আলোয় হাতে হাত রেখে আমর...  আরও দেখুন
    প্রত্যুত্তর . ১৫ জানুয়ারী, ২০১৩
  • মো: আশরাফুজ্জামান
    মো: আশরাফুজ্জামান ধন্যবাদ সাবের ভাই, বিষয়টা নিয়ে ভাবার জন্ন্যে...
    প্রত্যুত্তর . ১৬ জানুয়ারী, ২০১৩
  • মোঃ আক্তারুজ্জামান
    মোঃ আক্তারুজ্জামান সমাজকে ব্যাধি মুক্ত করার সুন্দর ভাবনার প্রকাশ ঘটিয়েছেন| ভালো লাগলো |
    প্রত্যুত্তর . ১৯ জানুয়ারী, ২০১৩
  • মিলন  বনিক
    মিলন বনিক একি চাঁদের আলোয় হাতে হাত রেখে আমরা নতুন পৃথিবী সাজাবো। স্বপ্ন দেখতে বড্ড বেশি ভালোবাসি। একটা কঠিন বিষয়কে সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করেছেন ভালো লাগল....
    প্রত্যুত্তর . ২০ জানুয়ারী, ২০১৩
  • পন্ডিত মাহী
    পন্ডিত মাহী কথাগুলো স্পর্শ করে যায়। তবে এইটি আসলে গল্প নয়। প্রবন্ধ হয়ে গেছে।
    প্রত্যুত্তর . ২১ জানুয়ারী, ২০১৩
  • মামুন ম. আজিজ
    মামুন ম. আজিজ একটা সুন্দর ডায়েরীল পাতায় জীবন প্রবন্ধ..গল্পের সাধ: পেলাম না আরকি
    প্রত্যুত্তর . ২১ জানুয়ারী, ২০১৩
  • মো. মহিউদ্দিন
    মো. মহিউদ্দিন অনেক ভাল গল্প । ভালো লেগেছে....
    প্রত্যুত্তর . ২৩ জানুয়ারী, ২০১৩
  • তাপসকিরণ রায়
    তাপসকিরণ রায় ভাই!কশাই না হলে মাংস তো খাওয়া হবে না!কাউকে না কাউকে তো এ কাজ করতেই হবে!তা না হলে সবাইকে মাংস খাওয়া ছাড়তে হবে।তবে আপনার ভাবনাকে মূল্য দিতে ইচ্ছে হয় বৈ কি!অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। আমার জানা নেই,কশাইকে কি জোর করে এ কাজ করাতে বাধ্য করানো হয়?না কি আপনি বলতে চাইছেন...  আরও দেখুন
    প্রত্যুত্তর . ২৩ জানুয়ারী, ২০১৩
  • খন্দকার আনিসুর রহমান জ্যোতি
    খন্দকার আনিসুর রহমান জ্যোতি প্রকৃত অর্থে এটিকে গল্প বলা যায় কিনা জানিনা...তবে উল্লেখিত ঘটনাকে প্রতিবেদন হিসেবে তুলে ধরার প্রয়াশ ভাল লাগলো....আশরাফুজ্জামান ভাই আপনাকে ধন্যবাদ..........
    প্রত্যুত্তর . ৩১ জানুয়ারী, ২০১৩

advertisement