হুতোম পেঁচার ডাকে ঘুম ভেঙ্গে গেলে সেদিন,
ভয়ে অস্থির হয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরে বলেছিলে,
“সাকি আমাকে ছেড়ে যেওনা”

আমি দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে, কবরের আঁধারকে কল্পনা করে বলেছিলাম ,
“একদিন তো যেতেই হবে ,
হয় তোমাকে একা করে আমি, না হয় আমাকে একা করে তুমি”
ছেড়ে যাওয়া,কান্নার রঙে আকা কষ্টের সুনিপুন অনুবাদ।

হাত ধরে হাঁটা চৈতালি রোদে স্পর্শের ফাগুন এনে
কানে কানে বলেছিলে" তুমি ছাড়া জীবন আমার আঁধার শ্রাবণ"
জানিনা কতটা আঁধার হলে জীবনে আসে শ্রাবনের বৃষ্টি প্রলেপ।
জানিনা জীবনে কতটা পাপের প্রায়শ্চিত্তে রঙধনু মুছে বর্ণহীন রাত্রি আনে।
কতটা কষ্টের বারিধারা নির্মোহ আনন্দে হৃদয়ের গলিতে আঘাত হানে।

জীবনের চৌকাঠে দুঃখের ঢালি বয়ে চলে সময়ের চোরা স্রোতে,
তাই বলে সুখ শায়রের প্রমত্ত প্রত্যাশায় থেমে থাকেনা জীবনের কোলাহল,
অস্থির আঁধারে তবু, এক কাঠি জোনাক জ্বলে হতাশার বেলকনি জুড়ে।

আমি তো হারিয়েই গেছি,এক নদী পূর্ণতা দিয়ে গেলাম,
কোন এক অবসরে এক রাত্রি আঁধার সরিয়ে নিও
কষ্টের নিয়ন থেকে বেলীর সুভাষে।
বন্ধুর পথে খরতার বৃষ্টি থেকে পরম প্রবাসে।

কবর গহীনে অনন্ত আঁধার, তাই স্বপ্নলোকে তোমাকে জানাই,
এসো মসৃণ পথে, হৃদয়ের মিনার তৃপ্ত করো জ্ঞানের সুধায়।
আলোকিত হও,আলোকিত করো কোরআনের আলোয়,
যে আলোর আলোক আভায় দূর হবে কবর গহীনের অনন্ত আঁধার।