নতুন একটি দিনের স্বপ্নে বিভোর আমি হেঁটে চলি নিরন্তর।
হেঁটে হেঁটে ক্লান্ত অবসন্ন যাযাবর পথিক আমি কখনওবা
থমকে দাঁড়াই; সম্মুখে বালিয়াড়ি, পাহাড়- মৃত্যুদূত এই বুঝি
আমার প্রাণবায়ু কেড়ে নিয়ে আমাকে ছুঁড়ে ফেলে দেয় শূন্যে!

যে রক্তনদী পেড়িয়ে, সফেন সমুদ্র পাড়ি দিয়ে এসেছি আমি
সেই উদ্ভ্রান্ত নাবিক আমাকে রক্তচক্ষুর শাসনে পরাস্ত করে-
আমাকে আমার উদ্দিষ্ট গন্তব্য থেকে ভুল পথে নিয়ে যায়-
সে স্বপ্নের অলীক! আমি তার ত্রাস- মৃত্যুদূত তার আমিই!

আমি কাজী নজরুলের উত্তরসুরি, আমি তার বিষের বাশরি
অগ্নিবীণা আমি, আমি বিদ্রোহী কবির বাবরি চুলের প্রলয়-
তাঁর বিদ্রোহী বিদেহী আত্মার আত্মীয় আমি, আমার পথ
রোধ করে এমন অসূরের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকি আমি!

এই বাঙলায় শকুনে- শৃগালে খেয়েছে আমার স্বজনের লাশ!
আমার সামনে যারা বোনকে করেছে বিবস্ত্র, ছোট্ট ভাইকে
শূন্যে ছুঁড়ে দিয়ে বেয়নেটে করেছে বিদ্ধ! আমি তাদের রক্তে
স্নাত হতে চাই, প্রতিশোধের আগুনে ঝলসে দিতে চাই সব।

একটি নতুন দিনের আগমনী বার্তা শোনাতে চাই আমি
অতঃপর ইতিহাস হতে চাই আমি এই বাঙলায় চিরদিনের।