আমি গিয়ে ছিলাম নোমরুদের শহরে
কোন একদিন...।
অহংকারী ঝড়ো বাতাস বইছিলো
সে রাজ্যের উপকূল জুড়ে
অদীপ পৃথিবী তখন কাঁদছে ...অবিশ্রান্ত...।
নিষ্পাপ আত্মার দুচোখ অনন্ত অঙ্গার হয়ে
জ্বলতে চায়!
কিন্তু সেখানে বাস্তবতা নিরুপায়!
মিথ্যার বিষাক্ত প্রলোভনের থক থকে চোরা বালিতে
ক্রমশ ডুবন্ত অনর্ঘ বিবেক – হাহা-কার করে ।
অশ্লীলতার বিক্ষুব্ধ ধূলি ঝড়ে ... মুহুর্মুহু ... নিষ্পাপ অশ্রুকণার অপমৃত্যু !
আমি সইতে পারিনি... ।
তাই চিৎকার করে আলো চাইছিলাম
একটি সুনামি চাইছিলাম ...।
চাইছিলাম বিধ্বংসী ভূমিকম্প...!
গুড়িয়ে দিক সকল অভিশপ্ত পাপের পিরামিড ।
যার তলে কুৎসিত আত্মাদের বসবাস ।
হিংস্র মানবিকতার শ্মশান তটে ... ভেসে যায় অনঘ লাশ ।
বেসামাল স্বার্থের কলঙ্ক-জলে দিনরাত ডুবোডুবি
নিখিলের প্রিয় সুখ হাঁটে লোভী হায়েনার শব যাত্রায়
অহর্নিশ সততার বিলুপ্তি ঘটে যেখানে ... খুব সস্তায়!
সেখানে কিসের বসবাস ?
তোমারা বলো ! সেটা আধুনিকতার সভ্য আবাস !

তবে এক মুহূর্তও নয়!
এই নোমরুদের নগরীতে !
ফেরাউনের শুকনো চামড়া ...
যদি তোমাদের কাছে লাগে জাফরান!
তবে জেনে রেখো ...আমি এই পৃথিবীর বাসিন্দা নই!
আর ছিলামও না কোনোদিন !
আমি ফিরে যাচ্ছি আমার সৃষ্টি কর্তার চিরস্থায়ী অপার সম্রাজ্যে
যেখানে রয়েছে সুরভীত জান্নাত...।
যেখানে কোন পাপ নেই ... হিংসা নেই ...লোভ নেই ।
নেই ফেরাউন ...দাজ্জাল ।