আকাশ বন্দি শহরের জানালার কাঁচে-কাঁচে নীল কার্বনের বিষাক্ত ছোবল-
এখানে নেই কোন জীবনানন্দের মায়াবী বাংলা,
নেই জসিমউদ্দীনের প্রিয় নকশি কাঁথার মাঠ।
প্রগাঁড় এক নিস্তব্ধ- আতঙ্কের কুয়াশায় আচ্ছন্ন সমস্ত নগরী।

নির্ভীক বুকে দুরন্ত হরিণের ক্ষিপ্রতা নেই,
খুঁজে পাইনা ক্ষুধার্ত জাগুয়ারের জ্বলন্ত রক্তচক্ষু।

দু-পায়ের নির্লিপ্ত জড়বস্তুরা!
তাদের সমান্তরাল; কালচে নদী বেয়ে ধেয়ে চলেছে মৃত শকুনের ভয়ার্ত চিৎকার!
সমস্ত চোখ জুড়ে জমেছে মরফিয়াসের বিষাক্ত পারদ স্তুপ।

ইলেকট্রিক বাতির অতল অন্ধকারে ছেয়ে আছে গোটা বাংলা-
এখানে চলে হিংস্র দাঁড়কাকেদের কর্কশ রাজত্ব।

না, এ বাংলা তো আমার জন্মভূমি নয় !
কোথায় হারাল সেই নজরুল, সুকান্তের কবিতার সশত্র গ্রেনেড?
মতিউর রহমান, নূর মোহাম্মাদের নির্ভীক স্টেনগান?

তবে আবার জ্বলুক আগুন মশাল-
ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যাক সব ইলেকট্রিক বাতির মিথ্যে প্রাচুর্য-
কেটে যাক সব আতঙ্কের নিস্তন্ধ কুয়াশা।

জেগে উঠুক বাংলার নির্ভীক বুক, স্টেনগান, সশত্র কবিতাগুলি…