শ্রাবণ মেঘে প্রেমের উল্কা ঝরা বৃষ্টিতে-
প্রিয়তমা তুমি আছো অধীর অপেক্ষায়
নীল টিপ আর নীলাম্বরী সাঁজ কদম গুঁজে নিয়েছ খোপায়
ভুনা খেচুড়ী,মাংস,ইলিশ আর বেগুণ ভাজায়
তুমি আনন্দে ব্যস্ত আজ দীর্ঘ টেবিল সাঁজায়
রিনিঝিনি মনে কত সুখ খেলে ভালবাসার ক্যানভাসে-
আল্পনা এঁকে এঁকে প্রিয়তমা,তুমি শিহরিত হও হৃদয় আনমনে।

কারো আবার ঝুম বৃষ্টিতে বাড়ে আরও কিছু জল
মেঘেদের সাথে আপোষহীন করে কষ্ট ভাগাভাগি
দোয়াদরুদ পড়ে প্রার্থনা করে চির দুঃখী অভাগী মা
জলের স্রোতে গেছে ভেসে ছোট্ট কোলের শিশু
নদী খেয়েছে ধানি জমি আর ভিটে মাটি শেষ আশ্রয়
এই বুঝি কেউ হাত বাড়ায়-
দাঁড়িয়ে আছে হাঁটুজলে বিমুগ্ধ আরাধনায়।

কেউ আবার ঘৃণার আবেশ মেখে আকাশের নীচে-
নির্ঘুম ছাপা মুখখানি তাঁর কঠিন চোয়াল শীর্ণতায়
শরীর জুড়ে গাঁয়ের মাটি প্রাচুর্য জলধারা
মেঘবর্ণ দৃষ্টিতে খুঁজে চলে হারানো সুন্দরী বালিকা
আদুরিনি সে,বিসর্জিত প্রাপ্য ত্রাণের মায়ায়
নিষ্ঠুর ক্ষণে কেউ নেই পাশে শুধুই সমুদ্র বিশালতা
আর আছে কর গুণে গুণে ফুলের সুবাস পেতে-
অস্থির সময়ের প্রতীক্ষা।