সুপ্রিয় পাঠক, লজ্জাশীলগণ লজ্জায় আবৃত কিন্তু অন্তরে পুড়ে পুড়ে অঙ্গার , তবুও অটুট তার নিজ দৃষ্টিকোণ । মানুষের জীবন তো একটাই লাজ সেখানে মানবীয় ভূষণ যদিও তা কূড়ে কূড়ে খায় । অনুতাপ শোক প্রেম জয় পরাজয়ে জীবন কখনো শান্ত কখনো উত্তাল । মূলত সবারই কিছু না কিছু লাজ আছে তা না হলে মনুষ্য সমাজে চলা শক্ত এবং গুরু ভাগে টারাই বিজয়ী । বিষয়ের সাথে কবিতাটির এভাবেই সামঞ্জস্যর চেষ্টা করা হয়েছে ।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১ এপ্রিল ১৯৭১
গল্প/কবিতা: ৩৩টি

সমন্বিত স্কোর

৪.২

বিচারক স্কোরঃ ২.৪৫ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৭৫ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - লাজ (জুন ২০১৮)

জ্বলে সলজে
লাজ

সংখ্যা

মোট ভোট ৩২ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.২

মোঃ মোখলেছুর রহমান

comment ১৪  favorite ০  import_contacts ৪১৬
অবশেষে তবুও আখিঁ তুললে না।
কেঁপে কেঁপে জেগে উঠে ধীবর রাগিনী সেতারে
ঘষে ঘষে সুর চকমকির মতো আগুন জ্বলে,
প্রত্যুষে পুড়ে অন্ধকারে হয় আলিঙ্গন;
নিজেকে পুড়ে পুড়ে অদ্বৈত অনলে।

কোন কালেও কি চাঁদ-সদাগর হেসেছিল!
ইন্দ্র-রাজ্যের সব চাপাবাজির গল্প জানে বেহুলা,
তবুও কী মুখ-তুলবেনা !সলজ অনিন্দিতা;
পায়ে পায়ে লেগে থাকে বেনুনীর মত পথ,
সে পথে সৌখিন সীমন্ত; অনেক প্রচলিত-
যৌবনের পরম ক্ষুধা ঈর্ষার ভিতরে
বেঁচে থাকে তাই লাজুকতার প্রথম শপথ।

বেদনার নীল রং বুঝে কী ফণী!
প্রহর গুনে গুনে ভেসে চলে রাত্রির ¯স্রোতে ,
শতাব্দীর পর শতাব্দী নয়,
এক জীবনের কালিদহ কতটা উত্তাল জান কী!

আযৌবন যে ব্যুহে বুক ঘষে ঘষে তক্ষক
রঞ্জিত করে অক্ষমতার দেয়াল-
কোন কালেও শার্সি চুইয়ে পড়েছিল
বিগলিত লাজুক প্রভা!

ছেদনে শ্লোক শাণিত হল বার বার
অনূঢ়া সম্পাদিকা ছাপলো না সে কবিতা
অশ্রুত পান্ডুলিপির মৌলিক কাহিনী।

শরতের শান্ত নদী বয়ে চলে সযতনে;
নামের পেছনে লেজুড় কৌম পদবী
হয়ে উঠা উঠলনা সলজ দরদী
কখনো কাঁদে কখনো হাসে সে পদবী
কখনো কেউ কেউ হয়ে পড়ি পদবীর লোক
ছেদন করে চলে অহোনিশি তক্ষক-শ্লোক।

হয়তোবা এমন হতনা!
ভয়ংকর সূচিতার কালো সাদা খেই
জড়াল দেহমন সলজ উল্লাসে,
মোহ বলি, দ্রোহ বলি একই মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ
অচল মুদ্রা বলে চলেনি তোমার কাছে।

পুড়ে পুড়ে সুখ সেও তুমি জানো
মৃদু হাসি হাসো ক্ষণেক আনত নয়নে
কাঁটার আঁচড় ভুলে তুলে সে ফুল
সচকিত চেয়ে দেখি-
সলজ বদনে ফোটে আছে তখনো
অনিন্দ আকূল।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement