কাল থেকে জীবনে কিচ্ছু নেই,
চাল নেই ,ডাল নেই, নুন নেই,
হাড়ি পাতিল সব এদিক ওদিক ছড়ানো।
তুমি চলে গেলে খালি হয়ে যাই আমি,
ক্ষুধাতুর দেশের ক্ষুধার্ত মানুষের মতো-
আমিও ক্ষুধার জ্বালায় ছটফটিয়ে উঠি,
চারপাশে তাকিয়ে দেখি জীবনে কিচ্ছু নেই
চাল নেই, ডাল নেই, নুন নেই,
হাড়ি পাতিল সব ছড়িয়ে ছিটিয়ে।
ভরদুপুরে ডাকপিয়ন আসতে পারে ভেবে ঘুমাইনি দু্দিন ধরে,
ময়লা শার্টগুলোকেই ময়লা রঙ্গে রাঙ্গিয়ে পড়ি,
তুমি চলে গেলে এরকমই হয়,
চারদিকে অসংখ্য কাল খেউটে মরা কান্না শুরু করে,
ফুটপাতের ভিখেরীরা হুড়োহুড়ি শুরু করে,
ক্ষুধার্ত মানুষেরা খেতে বসে যায় সকাল সকাল।
আমি শুধু শুয়ে শুয়ে ছটফটাই,
তুমি চলে গেলে এমনই হয়-
জীবনটা এম সি কলেজের বাংলা ভবনের মতো
অবহেলিতো হয়ে উঠে,
ভরে উঠে পুকুরের জলে, ঘরদোর সুনামিতে ভেসে যায়,
দুপুরবেলার খা খা রোদের চিৎকারে ভরে উঠে,
চারপাশে তাকাতে পারিনা,
কোথাও কিচ্ছু পাইনা।
তুমি চলে গেলে ক্ষুধার্ত হয়ে যাই,
ক্ষুধাতুর মানুষের মতো চিৎকার করে উঠি-
আমার চাল চাই, ডাল চাই, নুন চাই,
জীবনটা খাদ্যে ভরপুর চাই।

-বান্ধব।