যদি বলি তুমি অতিশয় রমণীয়, সুরম্য!
ভুল হবে না জানি। তবু মাঝেমাঝে মনে হয় কঠোর,
আমি ব্যস্ততা সরিয়ে ক্রমশ বেড়ে উঠি
কত উন্মাদ হয়ে প্রায়শই তোমাকে বুঝতে চেষ্টা করি।
কিন্তু সবকিছু যেন অভিনয়ের মতো হয়ে উঠে।
সূর্যাস্ত হয়েছিল দিন শেষের আগেই,
এখনো ভেবে পাইনি ওটা সূর্যাস্ত নাকি সূর্যগ্রহণ!
সে যায় হোক, আমি এখনো দু'হাত বাড়ায়ে
খুঁজে বেড়াই তোমায় প্রিয় রসকলি রমণী।
কিন্তু বিচ্ছিরি আঁধার তোমাকে খুঁজে পেতে দেয় না।
একসময় তুমি আলো হয়ে পাশে ছিলে বলে এই অন্ধকার
কোনোদিন আমায় গ্রাস করতে পারে নি।
সুযোগ দাও ভুল শুধরে নেওয়ার সময় হয়েছে,
তুমি তাকিয়ে দেখো, কতটা মরে-মরে বেঁচে আছি।
অন্ধকার যেন তোমায় লুকিয়ে রেখেছে, খোঁজে আমি...
মিনতি করি, পথ তুমি দেখিয়ে দাও ওহে নিঠুর আঁধার!
সে আলো আমার একমাত্র রসকলি রমণী,
যে আলোর শরীর ঘিরেছ কেড়েছ যার অধিকার!