মাঘ শেষে আগত ফাল্গুনের দ্বারে
তুমি মা আমার ঠেলে দিলে আমারে পৃথিবীর আলোতে।
সন্ধ্যার লালিমা পাখিদের কুঞ্জন আমার মাথার ওপর
কড়ি বর্গার সারি আর পুরানো দরজা জানালা সব বন্ধ
আমি গলাতে পেচিয়ে জন্ম নাড়ি আর কপালে রাজ টিকা
ক্লান্ত তুমি মুখ এগিয়ে গালে আমার একে দিলে ভালোবাসা
জানো মা, এই ৬৩টি ফাল্গুনেও আমি পাই তোমার মুখের
পান সুপারি চুনের গন্ধ দয়াময়ী মাদকময় মাদকময় ।
পৃথিবীতে মা ছাড়া আর কি কিছু আছে যা দিয়ে
স্বাদ- আহ্লাদ মেটানো যায়, অথবা মনের আশা ভালোবাসা
তোমার বুকে রেখে মাথা অবাক দেখেছি বাড়ির বৃক্ষমালা
সবজি ক্ষেতের বাইরে দাড়িয়ে ডাকি তোমায় মা মা বলে
আসছি বাবা দাড়া একটু ছিঁড়ে নিই সবজি আরও কটা ।
পুকুর কোনে খারোইতে ওঠে মাছ আমার হাতে অকস্মাৎ
কি আনন্দ নিয়ে হাসি মাখা চোখে রইলে চেয়ে বিজয়ী ছেলের পানে।
স্কুল ফেরত শিশুর তরে জানালায় ছিলে অপেক্ষায় ভয় নিয়ে মনে
দূর থেকে দেখি সাদা দাত বের করে হাসছ আমায় দেখে।
দরজা খুলে টেনে নিলে আমায় বুকে আনন্দে , জননী তুমি
হারিয়ে তোমায় বাস করি আমি ভালবাসাবিহীন এক পৃথিবীতে ।।