পরখ করতে চাও? করো তবে
এ'বেলায় তোমায় জাগাবো না আর!
চিরতার বীজ বুনে দিয়ে যেও
সবুজ উর্বর জমিতে
তিক্ত স্বাদে স্বাদে বুঝে নেবো আমি
ভালবাসা আহ্ সে যে কি অমৃত!

কেটে যাক প্রিয় যত পৌষালি প্রহর
আবেগী ঝাঁজে ঝাঁজে কাঁপবো না একটুও আমি
মৌন আকাশ এত দুর্বল ভাবো কি?
গেড়ে বসে পূজবো বুঝি তোমার চরণ!
না, কখনোই না
অসম্ভবের পাড় ঘেঁষে ঘেঁষে উদলা পায়ে পৃথিবী'রে আমি চিনেছি
অসাধ্যের পাহাড় ডিঙ্গিয়েছি একলা, একাকী
বুঝেছো কি? বা বুজতে চেয়েছো কি?
ঈর্ষায় জ্বলতে চাও? জ্বলো তবে,
এ'বেলায় তোমায় আর জাগাবো না!

এতো দ্বিধা! এতো সবুজ দ্বিধা প্রোথিত তোমার বুকে?
নীল নরকে ছড়াও উত্তাপ, আরও ছড়াও
লু-হাওয়ায় ভেসে যাবে তুমি নিজেই, আর আমি?
নস্টালজিয়া’য় আক্রান্ত হয়ে স্থির হবো
অনেকটা স্থির, সেই স্রোতহীন নদীটা’র মতো!
তারপর? তারপর আবার নিজস্ব শৈলীতে
নিজেকে ঠিক ততবার রাঙ্গাবো
যতবার তুমি আমায় পরখ করতে চাও!