বৈকালিক আড্ডা বেশ জমে উঠেছে আমাদের;

চায়ের সাথে ঝাল-মুড়ি।

হঠাৎ এক জন চিৎকার করে উঠলো - সাপ, সাপ।

বাগানের রজনীগন্ধা ঝোপে লুকিয়ে পড়েছে মুহূর্তে।

পুরো আড্ডাটাই ভেঙ্গে গেল, জমলো না আর কোন জোক,

কিংবা মজাদার রসালো খবরের বয়ান।

সবার মাথার মধ্যে ঢুকে গেছে - সাপ।

 

দু-চারজন - যারা সাহসী, মৃদু পায়ে গেল এগিয়ে,

কেউবা হাতে লাঠি, কিংবা কেউ শুধু দুটো হাত নিয়ে,

কেউবা কৌতূহলে, কিংবা কেউ প্রেমিকার বাহবা নেবার জন্যে।

এবং তা নিয়েও হয়ে গেল চমৎকার নাটক -

অজন্তা কিছুতেই যেতে দেবেনা ওর প্রেমিককে

এমন বিপদের মধ্যে ঝাঁপ দিতে।

এ’ নিয়েও তুমুল হাসির রোল পড়ে গেল।

এক মহিলা বলে উঠলেন, "আদিখ্যেতা"

 

ঝোপের মধ্যেই পাওয়া গেল কালপ্রিটকে;

লুকোনোর যায়গা পায়নি কোথাও, সামনে দেয়াল বলে।

দেখা গেল, সাপ তো নয়, একটা গিরগিটি।

হো হো করে আরেকটা হাসির রোল পড়ে গেল।

"ভাগ্যিস সাপ নয়", বলে প্রেমিকের প্রতি

কটাক্ষ ছুড়ে দিল অজন্তা - ভালবাসার।

"বেটা সাপ নয়, সাপের পোশাক পরে বসে আছে,

আর আমরা নকল সাপের ভয়ে সবাই চিৎপাত",

বলে ফোঁড়ন কাটলো একজন।

 

আমাদের মধ্যেই বসে আছে একটা আসল সাপ -

ধোপ দুরস্ত কাপড়ে বসে, ধীরে ধীরে চুমুক দিচ্ছে চায়ের পেয়ালায়।

সবাই তাকে চিনে, কয়েক খুনের আসামী;

উপর মহলে বেশ লাইন আছে বলে ধরা ছোঁয়ার বাইরে।

আমি মনে মনে বলি, "আসল সাপে আমাদের কোন ভয় নেই"