নির্যাতন ঘরে বাইরে অন্তরে রক্ত কনিকায়
সে তুমি তুচ্ছ করি আমাকে কাঁদিয়েছ নিরবধি
আমি কি দাস নাকি গোল আলু পটল টমেটো
আমাকে কেটে কুটে নির্দয় পাষান সৈকতে
একাকী সন্তরণে বাধ্যকরা জীবন !
বন্ধ করবে যে এই নির্যাতন; সেকি কখনই ভেবেছে
জীবন এখন মুক্তবিহংগের নিস্ফলা তোরণ।
ভালোবাসা ভালোবাসী কামে শুধুই অর্থ সঞ্চালন !

যুগের অধিক্ষণে যে রক্তক্ষরণ যে ক্ষত বয়ে চলেছি
ক্রমান্বয়ে সেপটিক ক্ষয়ে অঙ্গসমুহ হয়েছে বড় ভঙ্গুর
তাইতো এমন বয়ে যাওয়া জীবনের মায়া টানেনা অনুক্ষণ,
অণুবীক্ষণে জাগায় প্রেম, প্রেমের তরী কবে ডুবিয়াছে
তুমি বুঝোনি, দেখোনি আমার হৃদয়ের রক্তক্ষরণ।

প্রেমহীন একদা জীবন আজ পাষাণে অসহায় মৃত্যুবরণ !