আমাদের আশার ক্লান্ত দিনগুলো
প্রতিনিয়ত আঁধারের সাথে মিশে যাচ্ছে
আমি শেষ রাতে জীবনগুলো পরিবর্তনের জন্য
নতুন আলোর অপেক্ষায় থাকি
কিন্তু পৃথিবী ধীরে ধীরে জেগে ওঠে
অপরিবর্তিত পুরাতন সকাল নিয়ে
একই রঙ আর একই দিনের আবর্তনে।
স্তব্ধ নৈঃশব্দ্যের আড়াল থেকে
দীর্ঘ কষ্টের অনাহারী মানুষগুলো কাঁদে
কান পেতে শুনি গ্রাম ও নগরের বিক্ষোভ
নদীর জলে নীল বেদনারা খেলা করে
নিঝুম নিরালা অশরীরী প্রেয়তমার রূপে।
অপরূপ অফুরান মধুর সে আলোর ঝলক
অনাগত দিন ফিরে আসার আগেই হারিয়ে যায়
আমি ডাকি আর বলি পরিচয় দাও প্রকাশ হও!
প্রবেশ করো আঁধার পৃথিবীর দরজা খুলে-
তোমার চিত্রিত তুলির বিচিত্র রঙের সমাহারে
আমরা পরিবর্তন আর নতুন আলোর ছবি আঁকি
মৃত্তিকার উপর দিয়ে রিক্ত পথিক ব্যথায় হেঁটে যায়
নিভৃত অচেনা অজানা যুবকের রূপ ধরে
নতুন দিনের প্রতীক্ষায় সে ক্লান্ত নির“পায়।
অজানা পৃথিবীর কঠিন আঁধারে
বন্দি মানুষগুলো স্বপ্ন দেখে
আর দীর্ঘ জীবনগুলো উৎপাদনের কর্ম খোঁজে
আগামী নতুন দিনের সন্ধানে।
নদীও সমুদ্রের বিরহ মিলনে
এখনো মোহনীয় নতুন সূর্য ওঠেনি
চন্দনমাখা জ্যোৎস্নার রাত এখনো আসে
পরানের প্রিয়া ঘর ছেড়ে উড়ে যায়
দূর গ্রাম অচেনা যুবকের সংসারে,
অশ্রুমাখা ব্যর্থ জীবন শুধুই ঝরে পরে
গরল বিশ্বাসী অস্তিত্বের ভাস্কর্য বুকে নিয়ে

জন্মান্ধ বিপন্ন ভালোবাসায় জেগে থাকে।
নির্জন মধ্যরাত পাড়ি দেয় বেদনার্ত বুকে
ক্ষুধার দীনতা শরীরকে ছুঁয়ে দেয়
অমৃত মাটির গভীর থেকে বৃষ্টির জল এসে
কলি কণার রুদ্ধকন্ঠ পঙিক্তির নিঃসৃত সুরে
শানিত আগুনে জ্বলে স্বপ্নের অপূর্ণ স্বাদ
ফাগুনের পুরাতন অতীত সময়ের সাথে তাকিয়ে থাকে
পথভ্রান্ত নেতৃত্বের বিভ্রান্ত নির্দেশে,
অনাগত উদ্যানের অপ্রস্ফুটিত কলি থেকে
বাহারি সুন্দর ফুলগুলো ফোটার স্বপ্ন দেখে
কিন্তু নিত্য যুদ্ধের রণাঙ্গনে ওরা ঝরে পরে
আর আশার স্বপ্নগুলো ভেঙে যায় কষ্টের দহনে।
হারানো মেঘ এসে ঢেকে দেয়
নতুন সূর্যের সোনালি আভরণ
প্রকৃতির কাশবন নদী নগর ও গ্রাম
আমরা অপেক্ষায় থাকি শুধু অপেক্ষায়
তবুও আসেনা সময় নতুন আলোর পরিবর্তিত দিন।