জীবন পরিক্রমায় অনবদ্য সংকেত ভাষা সৃষ্টিতে,
সৃষ্টিশীল উদ্ভাবনী শক্তির বহিঃপ্রকাশ রয়েছে তাঁর কৃষ্টিতে।
সৃষ্টিতে তাঁর রয়েছে কৃষ্টি,মনের আবেগ প্রকাশে
প্রকাশ যদি হয়ে থাকে বাংলাভাষা ব্যবহারে।
বাঙালী জাতীর চৈতন্য মনে রয়েছে সুপÍ বাসনা,
বাংলায় হবে একমাত্র রাষ্ট্রভাষা-এ কোন সাধনা।
সাধনা দিয়ে করবো জয়; লড়বো মোরা অপশক্তিকে,
দুর্গম পাহাড়,বজ্রধ্বনিতে ভীত করে না বাঙালী জাতীকে।
বাঙালী জাতী বীরের জাতী,শক্ত হাতে লড়তে জানে
বাংলাভাষী,বাংলাভাষাকে মুক্ত করতে নেমেছে সবখানে।
৫২র,ভাষা আন্দোলনের পথিকৃৎ সালাম,বরকত,রফিক,নাম না জানা অনেকে
ভাষার জন্য তাদের জীবন দিয়ে দৃষ্টান্ত করেছে বিশ্ববাসীকে।
ভাষা ভালবাসার মন্ত্র দীক্ষায় জাতীকে করেছে বীরত্ব,
শহীদদের রক্তে আঁকা ২১শে ফেব্রুয়ারি, জাতীর বিবেককে করেছে জাগ্রত।
অনন্য ত্যাগের স্বীকৃতিস্বরুপ বিশ্ব দিয়েছে জাতীকে সম্মামনা,
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস দিয়ে জাতীকে করেছে বিরঙ্গনা।
ভাষা শহীদদের সূত্র ধরে শুরু হয়েছিল স্বাধিকার আন্দোলন,
বাকস্বাধীনতা রক্ষায় জাতি, শপথে অগ্নি-প্রজ্বলন।
শত্রুমুক্ত হয়ে দেশ,পেল লাল সবুজের পতাকা,
বাংলাভাষার ভূখণ্ড পেল, বিশ্বমানচিত্রে আঁকা।
শহীদদের রক্তে ভিজানো ভাষা প্রিয় বাংলাভাষা,
মোদের গর্ব মোদের ভাষা ,শেষ হবে না আশা।
বাংলা ভাষা মায়ের ভাষা থাকবে চিরস্মরণীয়,
সকল কাজে,ভাষা ব্যবহারে, আমরা হবো বরণীয়।