লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২০ সেপ্টেম্বর ১৯৮৬
গল্প/কবিতা: ৯টি

সমন্বিত স্কোর

৪.৯৫

বিচারক স্কোরঃ ২.৯৬ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৯৯ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftঈর্ষা (জানুয়ারী ২০১৩)

ধুলোর শহরে কালচিটে কবিতা
ঈর্ষা

সংখ্যা

মোট ভোট ৮৩ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.৯৫

নৈশতরী

comment ৩৯  favorite ০  import_contacts ৯৯০
কয়েক মুহূর্ত আগে
একটা চলমান প্রাচীন সকালের
সূর্য না ওঠা দুপুর পর্যন্ত বেদম প্রহার!
কুয়াশা বর্ষণ শীতে।
আমি তখন থেকে পাহারায় নির্ঘুম জেগে আছি!
হাতের জ্বলে থাকা মশাল আলো
পিঠের ক্ষত দাগ গুলো
কাঁচা হয়ে এখনো জ্বলছে।
জ্বলছে ঝলসে দেয়া আগুনের ফণা’রা!

আমি স্থির
এত পথ হেটে হেটে এত শতাব্দী পরেও
আমি স্থির পাহারাদার।
নাগালের বাইরে নিভো নিভো দৃশ্য
হাতের কাছে সমুদ্র ভর্তি কলঙ্কিত রূপে
কে যে স্বজনী কে পেতনি...?
এগুলো সব হবে একদিনের সমান।
একটা কর্মকার তাঁর বানানো গহনার মতো
ফ্রেমে আঁটকে রাখা মহাকাল।

আমি কালকেই জঠর থেকে বেরিয়ে এলাম
পূর্ব-শতকের শেষ দিকে।
তখন “ফারাও” সম্রাজ্জ আমার ভয়ে
হুড়মুড় করে লড়ে উঠে থামার আগে
তোমার বখে যাওয়া ঈর্ষা’রা গুহা ছেড়ে বেরিয়ে এলো
কাল্‌ হয়ে পথ আগলে দাঁড়ালো আমার!
খোঁচা দিলো সময়।
এগুলো সব একটা দিনের সমান মনে হয়।

তুমি বৌ জানো কি? তোমার ঈর্ষা গুলোকে,
বারবার আমাকে শুধরাতে, বাঁচিয়ে রাখে একটা অধীশ্বর?

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement