ভোরের বাতাসের কানে কানে বলে দিয়েছিলাম
আজও আমার বুকের বাম পাঁজরের একটু খানি নরম ভূমি খালি রেখেছি
তুমি তাড়াতাড়ি এসো; যেমন খুশি আবাদ করার মোক্ষম সুযোগ পাবে ।
ডালিয়া গাছের ঘন ছায়ায় সেই মোটা শিকড়ের আসন গুলো
এখনও তোমার অপেক্ষা করে আছে !

জুতা পালিশের কদম ব্যাটা মাঝে মাঝেই জিজ্ঞেস করে, বাবু, মেম আসেনি ?
আমি কোন উত্তর দিতে পারিনি ।
আচ্ছা বল দেখি, শিউলি ফুল গুলি প্রতি রাতেই কেন ফুটে ?
তুমি আসবে তাই বলে কি নিত্য ভোরের রবি উঠে ?
অথচ তুমি মিছেমিছি রেগে আছো; দেখো আমার বেড শীট, বালিশ
এখনও সেই আগেরই মতই । দেয়ালে হেলান দেওয়া পুতুল বাবু সোনাও !

আমার একলা সময়ের বারোটা বাজিয়ে দিচ্ছে তোমার কিছু বাচাল স্মৃতি !
বার বার আমাকে শত বছর পেছনে নিয়ে যায়,
পূর্ণতার কথা বলে ! আমি অত শত বুঝি না ।
শুধু পূর্ণিমা রাতে তোমার বুকে মাথা রেখে ----- ।
আর বলতে হবে কেন ? বাকীটা তোমারই তো বলার কথা ছিল !

শুন্য আমি, রিক্ত আমি, ইথারে তোমায় বেড়াই খুঁজে
মুয়ুর পঙ্খী নাও পাঠাবো, ধান শালিকের হাট বসাবো
সোনার পালং, খাট বসাবো
শুধু তুমি ফিরে এসো, ফিরে এসো ।।