ঘুম থেকে উঠে আমার মেয়েটি, বলেছিল পাপা শোন্‌
দোকান থেকে আমার জন্য, লাল শাড়ী কিনে আনো ।
আমি আর কি বলিব কথা, হ্যাঁ বলেছিনু মাথা নেরে ,
জীবনের খাতা, দিয়েছে ব্যাথ্যা, তার কাছে যাই হেরে ।
বাড়ির বাহিরে দিয়েছিনু পা , দেখেছিনু কত দেখা ,
পাশের বাড়ির ছোট্ট মেয়েটি , জড়িয়ে আছে ছেঁড়া কাঁথা ।
কি আর বলিব , কি আর করিব , হৃদয় ভেঙ্গে গেল ,
আমার মেয়েকে মনে পরিয়া , হৃদয় কেরে নিল ।
বলিলাম তারে নাম কি তোমার, স্নেহের হাসি দিয়ে ,
বলিল সে ময়না বেগম , মলিন হৃদয় নিয়ে ।
বাবা ছিল তার দিনমজুর আর , অনেক আদর করত ,
মাঝে মাঝে তাই , তাকে নিয়ে যাই , বিল ঝিলে মাছ ধরত ।
সকাল বেলাতে খেত গমের গুড়ো , দুপরে খেতে পায়না ,
রাত্রিতে বাবা চকলেট আনত , তাই ধরতনা কোন বায়না ।
ঈদ এলে তারে পুরনো কাপড় , সেলাই করে দিত তার মা ,
সামনের ঈদে, নতুন জামা দিবে , এই ভেবে থামাত কান্না ।
অনেক ভাবিয়া বাজারে জাহিয়া , কিনলাম দুটি শাড়ী ,
একটি আমার মেয়েকে দিব , অন্যটি তারে , ফিরে আসিলাম বাড়ি ।