লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১২ নভেম্বর ১৯৮২
গল্প/কবিতা: ৮টি

সমন্বিত স্কোর

১.৪৩

বিচারক স্কোরঃ ০ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৪৩ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftবৃষ্টি (আগস্ট ২০১২)

রমাঞ্জন
বৃষ্টি

সংখ্যা

মোট ভোট ৩১ প্রাপ্ত পয়েন্ট ১.৪৩

প্রিয়ম

comment ১২  favorite ০  import_contacts ৭৭২

গ্রীষ্মের শেষ বর্ষা কাল । আষাঢ়ের শুরু , সেদিন বৃহঃবার । সকাল থেকে আবহাওয়াটা নরম শিক্ত শুক্ষ শুক্ষ ভাব । মনে হচ্ছে আজকে প্রকৃতির সেই অনন্ত মহিমান্নিত সর্গ হতে কোন না কোন সুখবর আজ তিনি নিজেই এই ছোট্ট সবুজ শ্যামলে ভরা পৃথিবীর বুকে নিয়ে এসেছেন । তাইত পৃথিবী আজ উজাড় করে দিচ্ছে তার সমস্ত ভালোবাসা ও নিজস্ব প্রতিভা । সূর্য যেন তার হাসজ্জল মুখখানা দিয়ে বিকট শব্দে হাসছেন । বিলিন করে দিচ্ছেন তার সমস্ত ভালোবাসার পবিত্র আলো । তাই নীল আবরন যুক্ত আকাশটা সাধা ধপধপে হয়ে গেছে । কোথাও কোন মেঘ নেই ।

আকাশের কোন এক অদূরে চিল যেন স্বাধীন ভাবে তার সমস্ত বিচরণ করে উড়ে বেড়াচ্ছে । পাখিরা স্বাধীন মনে তাদের ভাষা দিয়ে আনন্দে কিচিমিচি করে মনের ভাব প্রকাশ করে বৃক্ষলতার এ ডাল থেকে অন্য ডালে ছুটে বেড়ায় । আবার কোন কোন পাখি কিচিমিচি করে মনের দুঃখ প্রকাশ করে জীবিকা নির্বাহের জন্য অন্যত্রে চলে যায় ।

পথিকেরা ক্লান্তি শেষে তার মাটি দ্বারা তৈরি দেহখানাকে একটু জিরিয়ে নেয়ার জন্য কোন না কোন বৃক্ষের সাহায্য নিয়ে , তার গায়ে হেলিয়ে বসে , আর শীতল মধুর বাতাস উপভোগ করে । রাখাল গরুর পাল লয়ে মাঠে কি যেন আনমনা ভাবে আর মধুর সূরে গান গেয়ে গেয়ে তার মনের সমস্ত দুঃখ যন্ত্রণার ক্লান্তির অবসান নেয় । কৃষকেরা নিজ কাজে , নিজ মনে তার নীল সবুজ ক্ষেত নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পরেছে । আর ঠিক সেই সময় কৃষাণী কৃষকের ব্যস্ততার আড়ালে একটু জিরিয়ে নেয়ার জন্য কাঁধে করে কলস ভরা ঠাণ্ডা শীতল পানি আর নিত্য দিনের সাথী পান্তা ভাত নিয়ে যায় । কৃষাণী আঁচল পেতে দেয় , কৃষক মনের সুখে খেয়ে দেয়ে মধুর কণ্ঠে দীঘল লম্বা সূরে গান গাইতে গাইতে আবার ব্যস্ত হয়ে পরে । কৃষাণী এক গাল মুখভরা হাসি নিয়ে ফেরার পথে পথে । সে সময় সমস্ত শিক্ষা প্রতিশ্তান গুলো তার নিজস্ব প্রতিভা , উজাড় করা ভালোবাসা , অসীম শক্তি দিয়ে মানুষ গড়ার কারিগর হয়ে , মানুষ তৈরির কাজে আজ ব্যস্ত ।

ঠিক সেই সময় ভরা রোদকে উপেক্ষা করে , অজানা অচেনা একটি ছেলে ক্লাস শেষ করে কলেজের আঁকাবাঁকা পথ দিয়ে নরম সিক্ত শীতল ঘাসের ছোঁয়া নিয়ে একা একা ফিরছেন । হাতের ক্লিপ ফাইলটা দিয়ে বার বার অগ্নিকুণ্ডলিত সূর্যের সেই বিকট হাস্যেজ্বল মুকখানা আড়াল করে নিজেকে একটু ঠানডা শীতল ছায়া দেওয়ার চেষ্টা করেছেন । আর কি যেন আনমনা চিন্তায় চিন্তিত । হটাত ভাবতে শুরু হল , মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব , কে বানিয়েছে ? তার বিবেকের কাছে বার বার জানতে চায় । এই আকাশ , এই পৃথিবী , চন্দ্র , সূর্য , দিন ও রাতের অন্ধকারে আকাশ ভরা তারকা কে সৃষ্টি করছেন ? তার মনের গভীর অন্তরায় থেকে কে যেন বলছেন , হ্যাঁ , এ সবের নিশ্চয় একজন মালিক আছে । তিনি সর্ব শ্রেষ্ঠ , তিনি মহান , তিনি সৃষ্টিকর্তা ।

সে আর কিছু ভাবতে পারে না । হতভম্ব হয়ে নিস্তদ্ধ এলোমেলো মন নিয়ে নিজেকে বড় ক্লান্ত ভেবে এদিক সেদিক না তাকিয়ে ফিরে আসে একটি আম বাগানের নিচে । সেখানে কিছুক্ষণ দারিয়ে নিজেকে একটু জিরিয়ে নিয়ে , আবারও আনমনা হয়ে একা একা কি যেন ভাবতে ভাবতে চলে আসে । সে যেখানে থাকে , যেখানে ঘুমায় , খায় ও লেখাপড়া করে । এসে জামাকাপড় খুলে সোজা বাথরুমে গিয়ে নিজেকে ফ্রেশ করে নিয়ে , ডায়রিখানা প্রতিদিনের মত বইয়ে ভরা সাজানো গুছানো টেবিলের উপরে এবং কিলিপ ফাইলটা অন্যান্য ফাইলের উপ রাখে । তারপর একটি বই নিয়ে চেয়ারে বসে পড়তে থাকে । আসলে ছেলেটি কে ?

ওর নাম “সাহস” । জীবন যুদ্ধে নেমে জীবনের সংগে যুদ্ধ করে চলছে প্রতিনিয়ত । কিন্তু এই জীবন যুদ্ধের কখন যে সঠিক আবসান হবে সে জানে না । আর জানে না এই বিশাল পানি ভরা সাগরের কোথায় জীবন তরী থামানোর কুল কিনারা আছে । তাই একদা “সাহস” নিজেকে ভুলে গিয়ে , বড় অসহায় , বড় একা , ক্লান্ত ভেবে জীবন যুদ্ধে হেরে যেয়ে , জীবনের ভাঙা তরী ছেড়ে দিয়ে , জীবন যুদ্ধের অবসান নিতে উদ্যত ছিল ।

কিন্তু প্রকৃতির অসীম করুণা , কো থেকে ছুটে আসা ভালোবাসার মর্মস্পর্শনিয় নরম সিক্ত ছোঁয়া পেয়ে , সে তিলে তিলে সবকিছুকে ভুলে গিয়ে , আজ আর নিজেকে অসহায় , একা , ক্লান্ত না ভেবে , ভাঙ্গা তরীখানা সাজিয়ে গহীন জঙ্গলের মাঝ পথ দিয়ে বেয়ে বেয়ে , সমস্ত কিছুকে উপেক্ষা করে চলছে বীরের মতো । কারন তাকে সুন্দরভাবে বাচতে হবে । আর এই বাঁচার জন্য চাই লড়াই । সে এখন বুঝতে শিখেছে সুন্দরভাবে বাঁচতে হলে চাই সুশিক্ষা । আর এই সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সে বাঁচতে চায় । দাড়াতে চায় মুখুশধারি সমাজের প্রতি , অন্যায়ের প্রতি । দাড়াতে আভাব যুক্ত সমাজের প্রতি । সমাজকে সুন্দর সাবলীল সুশিক্ষায় গড়ে তুলতে চায়। চায় প্রতিবেশী , সমাজ ও দেশের মুখে হাসি ফুটাতে । তাইত সে খোঁদার কাছে প্রাথনা করে নিজস্ব কর্ম প্রতিভা দিয়ে আজ “অনার্সে” অধ্যায়নরত । পারি দিতে শুরু করেছে নীল গহীন সমুদ্রের পানিময় পানি বিস্তৃত সুদীর্ঘ পথ ।


“সাহস” একা একা তার রুমে চেয়ারে হেলান দিয়ে বসে বইতা নাড়াচাড়া করছে । সামনে টেবিলের উপরের জানালা দিয়ে রুমের মধ্যে সূর্যের আলো প্রবেশ করছে । সেই সাথে কিছু রোদ এসে সাহসের মুখের মধ্যে পরেছে । শুধু রুমের ফ্যানটা ধিরে ধিরে শো শো শব্দে ঘুরছে আর বাতাস দিচ্ছে । আর কোথাও কোন শব্দ নেই , মনে হচ্ছে কেউ এখনও ফেরেনি । “সাহসের’ চোখে পরে টেবিলের উপর রাখা সেই রজনীগন্ধা ফুলের স্টিক দুটি তার সমস্ত ভালোবাসার সুগন্ধ ছরিয়ে দিচ্ছে । সাহস আনমনা হয়ে একা একা সেই রজনীগন্ধা ফুলের উজাড় করা ভালোবাসা উপভোগ করছে । সেই সাথে মনে পরছে কলেজের কথা ।


একদিন সাহস ওর এক বান্ধবি সহ কলেজের কোন এক জায়গায় দারিয়ে গল্প করছিল । ওর নাম “কাব্য” , সাহস সহ এক সংগে পড়ে । সাহস প্রথম কলেজে এসে কাব্যর সংগে পরিচয় হয়েছিল । তখন থেকে কাব্য সাহসের সংগে সঙ্গ দেয় । সাহসও যেটুকু সময় কলেজে থাকে কাব্যর সংগে থাকে । যাই হোক সেই সময় হটাত করে পিছন থেকে একটি আওয়াজ আসল , ফুল লাগবে ফুল ? সাহস পিছন ফিরে তাকাতে না তাকাতেই একটি ছেলে এসে হাজির । ছেলেটির হাতে অনেকগুলো ফুল । ছেলেটি দেখতে মনে হয় কত ফুটফুটে ফুলের মত পবিত্র । ওর চোখে মুখে যেন উজ্জ্বল ভবিষ্যতের ছোঁয়া । ছেলেটিকে দেখে সাহসের মায়া হলো , তবুও বলল না লাগবে না । কারন সাহসের ফুল কেনার অভ্যাস নেই । এর আগে কখনও সে ফুল কেনেনি । অবশ্য সাহসদের বাসায় অনেক অনেক ফুল গাছ ছিল , এখন তেমনটি নেই ।


ছেলেটি চলে যেতে যেতে কাব্যর দিকে চেয়ে করুন হাস্যজ্জল কণ্ঠে বলল , আপামনি আপনার লাগবে না ? কাব্য একটু হেসে মাথা নেরে বলল হাঁ লাগবে । হাতে থাকা ভ্যানিতি ব্যাগ থেকে টাকা বের করে দুটি রজনীগন্ধার স্টিক কিনে সাহসের হাতে দিয়ে বলল তোর জন্য কিনলাম । তখনি সাহস চমকে উঠে দেখল , সে এখনও চেয়ারে বসেই আছে ।


সেই মুহূর্তেই নিস্তব্ধতার দেহ চিরে কোন ধ্বনি , কিসের ধ্বনি , এত সুমধুর কণ্ঠে বহিতে লাগিল , সাহসের নিশ্চুপ মনমরা দেহখানা আকুল হয়ে গেল । মোয়াজ্জেম আযান দিচ্ছে । এর সেই সমস্ত কিষান কিষাণীরা ক্লান্তির অবসান নিতে ফিরছেন । রাখাল গরুর পাল নিয়ে হইহুল্লর করে গান গাইতে গাইতে ফিরছেন মুনিবের আস্তানায় । সকল ছাত্র ছাত্রীরা শিক্ষা নিয়ে ফিরেছেন দল বেধে দলে দলে শিক্ষাঙ্গন থেকে । তাদেরও ক্লান্তি মনে নিস্তার নিতে ছুটে চলছে খরের পাতা ভরা ছোট্ট কুঠিরে । পাশের জ্বলে ভরা পুকুরে সবাই হইচই করে গোসলে মেতে উঠেছে । ছোট ছোট ছেলে মেয়েরা মনের উদ্ভাসিত আনন্দের প্রতিবেদনায় সাঁতার কেটে অতল তরঙ্গের ঢেউ তুলছে । পাখি সব গাছের ডালে ডালে বসে মধুর মিলন পথের অন্তরায় নীবির আলিঙ্গনে মেথে উঠেছে । ভালোবাসার কঠিন মমত্ব বেদনাদায়ক হৃদয়কে সমস্ত জ্বালাময়ী চিৎকার থেকে বঞ্চিত করার জন্য । ভালোবাসার বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে চিরকালীন , মনের গভীর অন্তরায়ের পথ খুলে বিদ্যুৎ শিখার মত উজ্জ্বল সুধুর প্রসারী আনন্দ সাগর গড়তে চায় তারাও ।

চলমান

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • মোহাম্মদ ওয়াহিদ হুসাইন
    মোহাম্মদ ওয়াহিদ হুসাইন ......................সাধু চলিতর কারণে একটু জটিল মনে হল, তবুও ভাল বলতে হয়। শুভেচ্ছা রইল।
    প্রত্যুত্তর . ৯ আগস্ট, ২০১২
  • হাসান মসফিক
    হাসান মসফিক ভালো লাগলো ........
    প্রত্যুত্তর . ৯ আগস্ট, ২০১২
  • অরূপ কুমার বড়ুয়া
    অরূপ কুমার বড়ুয়া বিষয়টা বেশ ভালো লাগলো | ফোনেটিক ব্যবহারে যত্নবান হবেন | অনেক ভালো লেখার প্রতাশায় শুভকামনা |
    প্রত্যুত্তর . ১০ আগস্ট, ২০১২
  • জসীম উদ্দীন মুহম্মদ
    জসীম উদ্দীন মুহম্মদ ছেলেটি চলে যেতে যেতে কাব্যর দিকে চেয়ে করুন হাস্যজ্জল কণ্ঠে বলল , আপামনি আপনার লাগবে না ? কাব্য একটু হেসে মাথা নেরে বলল হাঁ লাগবে । হাতে থাকা ভ্যানিতি ব্যাগ থেকে টাকা বের করে দুটি রজনীগন্ধার স্টিক কিনে সাহসের হাতে দিয়ে বলল তোর জন্য কিনলাম ------ ভাইয়া স...  আরও দেখুন
    প্রত্যুত্তর . ১১ আগস্ট, ২০১২
    • প্রিয়ম আসলে বানান নিয়ে আমিও চিন্তিত যাইহোক অনেক অনেক ধন্যবাদ আপনাকে .।
      প্রত্যুত্তর . ১১ আগস্ট, ২০১২
  • আহমেদ সাবের
    আহমেদ সাবের "সাহস আনমনা হয়ে একা একা সেই রজনীগন্ধা ফুলের উজাড় করা ভালোবাসা উপভোগ করছে । " - গল্পটার মূল বক্তব্য এখানেই। রজনীগন্ধা ফুলগুলোই প্রিয়ার অঞ্জন - সে হিসাবে গল্পের নামকরণ যথাযথ হয়েছে। বানান ভুল বাদ দিয়ে, সুন্দর গল্প। বেশ ভাল লাগল।
    প্রত্যুত্তর . ১১ আগস্ট, ২০১২
  • Sisir kumar gain
    Sisir kumar gain বাঃ বেশ সুন্দর গল্প।ভাল লাগল।
    প্রত্যুত্তর . ১৩ আগস্ট, ২০১২
  • তানি হক
    তানি হক লিখার স্টাইল টা দারুন লেগেছে আমার কাছে ...আগামীতে আরো সুন্দর লিখার অপেখ্খাতে রইলাম রইলাম ধন্যবাদ ...
    প্রত্যুত্তর . ১৫ আগস্ট, ২০১২
  • সকাল  রয়
    সকাল রয় একটু ভোট দিলাম সুন্দর লেখায়.................
    প্রত্যুত্তর . ২১ আগস্ট, ২০১২
  • ফয়সাল বারী
    ফয়সাল বারী সুন্দর গল্প ভাই
    প্রত্যুত্তর . ২৮ আগস্ট, ২০১২
  • মামুন ম. আজিজ
    মামুন ম. আজিজ ধরাাবাহিক,..চলুক
    প্রত্যুত্তর . ৩০ আগস্ট, ২০১২

advertisement