কবি হতে চাও?
তবে হয়ে যাও কবি।
মনে রেখো
কবি হওয়া
ঝর্ণার বিরামহীন স্বচ্ছ জলধারার মতো
সহজ কাজ নয়।
পশু-পাখি-মাছ-মানুষ
বন-বৃক্ষ-নদী-সরোবর সহ
এ পৃথিবীর সমস্ত মানবতাকে
অবিরাম নৃশংসভাবে নিপীড়ণ করা ছাড়া
কেউ কবি হতে পারেনা।
এই যে আজ আমাকে দেখছ
অট্রালিকা থেকে বের হয়ে
পাজেরো গাড়ী আর হেলিকপ্টারে চড়ে
শহীদ মিনার-স্মৃতি সৌধ
সংসদ-সচিবালয়-প্রেসক্লাব-নাইটক্লাব
মাজার-টানবাজার
মন্দির আর মসজিদে মসজিদে ঘুরে বেড়াচ্ছি;
পলাশী-দিল্লি-ইসলামাবাদ
সাভার-টুঙ্গিপাড়া-বগুড়া-রংপুর হয়ে
নিউইয়র্ক-লন্ডন-প্যারিসে
জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থার
অজস্র সভা-সমাবেশে
আমার দেশের মানুষের মানবতা জাগরণের জন্য
অবিরাম বক্তৃতা-বিবৃতি-টক শো
কলাম-ডায়লগ্-সেমিনার-সিম্পোজিয়াম করে বেড়াচ্ছি;
আমি কি পারিশ্রম করিনি ?
করেছি কি পরিশ্রম
দিনমজুর-শ্রমিকের চেয়ে কম ?
সুদীর্ঘ পঁচিশটি বছর
সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের
আমলা ছিলাম আমি;
কমপক্ষে ত্রিশ লক্ষবার
নিষ্ঠুরভাবে তোমার এই প্রিয় মাতৃভূমিকে
পাশবিক নিযাতন করতে হয়েছে এই আমাকে;
সবুজ পতাকার লাল জমিনে
রক্ত ঝরিয়েছি অযুত-নিযুত বার;
অতল জিঘাংসা বুকে নিয়ে
কত সহস্রবার তোমার জন্মভূমিকে
সুনামি,সিডর আর আইলা’র মতো লন্ডভন্ড করেছি
তার তো হিসাব-ই রাখিনি।
এত কষ্টের সহস্র পাহাড় বেয়ে বেয়ে আজ
বুদ্ধিজীবির তিলক পরেছি কপালের চূড়ায়:
সারা গায়ে জড়িয়েছি মহাত্মা গান্ধীর সাদা ধুতি
রবিঠাকুরের আধাপাকা দাড়ি
বিদ্রোহী নজরুলের অবোধ শিশুর মতো চোখ
পল্লীকবি জসিম উদ্দিনের মোটা ফ্রেমের চশমা
মৌলানা ভাসানীর টুপি
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের কালো কোট
আর মৃত্যুঞ্জয়ী কর্ণেল তাহেরের বিপ্লবের ঘ্রাণ।
কবি হতে চাও?
তবে হয়ে যাও কবি।