সেদিন মনের ভেতর বেশ রাত ঘনিয়ে ছিল
তুমি মাত্রই আমার শহরে এসে নামলে
লাইটপোষ্টের আলোয় তোমার চোখে
সাজানো কাজল একটু চমকে ছিলো
স্টেশন যতদূর জানা ছিলো, খালি...
তুমি একা একা, হাতে ফিরতি ঠিকানা
বুকের মাঝে একটা দূঃখ-আক্ষেপের চিঠি
আর আমার ঘুম বাঁধা শরীরে হেলান দাও
এর পর আমাদের সেখানেই কেটেছে অনেকগুলো যুগ
বাসি ফুলের স্পর্শ মিশেছে শ্যাওলার বানে
শিশির ফোঁটা বৃষ্টি সমস্ত বন্ধ জানলায়
এতখানি কল্পনায় উত্তাল স্রোতে নিভিয়ে দিয়েছে
ভাসিয়ে করেছে অনেকখানি পরবাসী...
তুমি আমার শহরে এসে
অনেক জলের নীচে, আমাকে ছেড়ে যাবে বলে
উঠে দাঁড়াও- সন্ধ্যে নামিয়ে এক লাল পলাশ বনে...
তুমি সারল্যে দৃষ্টিতে জল ধরে রাখো কার্নিশে রাত মাখিয়ে
অস্বচ্ছ লোনা পুকুর, পানা ভেসে যায়, ডোবে
কিংবা অশুদ্ধ মেয়ে কে জানে...

আমি শুধু পথ চেয়ে ছিলাম...
মলাটের ভাঁজে ঘুম আসেনি সারারাত
না যদি আসো, যদি ফিরে জ্বলো আগুনে
একা একটা রাত, শুধু চিলেকোঠায় একটা হাতের ছাপ
...কাছে থেকো। জানো, অপেক্ষায় জেগেছি সেই সারারাত...