শ্রাবণের বৃষ্টিবিলাসে যখন মনে পড়ে
মেঘলা চাদরে তোমায় খুঁজি অবিরাম।
শিশির ভেজা ঘাস ফুলে খুজি তোমার
অদ্ভুত অমলিন ছবিটা।
যখন ভুলে থাকি রাতের প্রলেপ মেখে,
দু হাতে সরাই স্মৃতির জলছবি।
এক সাগর ভাবনায় ডুবে
ঘুম ভাঙাই কবিতার, অথচ আমি কবি।
একি প্রেম, নাকি মুখোশ?

আমি প্রেমের শ্বেত বলাকায় ডানা মেলে,
উড়ে চলেছি দূর দূরান্তে।
প্রসারিত পথে প্রতিবিম্বিত হয়
প্রেম লহরীর নতুন সকাল ।
সবুজ গালিচায় দেখি অবাক সূর্যোদয়
সোনার দেশ,সে যে পুরনো বিস্ময়।
বিবেক বিকিয়ে গলা ফাটাই ,
আঁচল ধরে তারে শূলে চড়াই ,
দ্যাখো, কি জঘন্য প্রেম?
পঙ্কিলতায় কালচে হয়
প্রিয় সবুজের রক্ত পলাশ।
অথচ পাশেই পড়ে রয়
চেতনার জীবন্ত লাশ ।

মুঠোয় মুঠোয় প্রেম ফেরি করে আনি,
যখন মসজিদ ভাঙে কাদিয়ানী।
যখন ইসকনে ভাঙে ঘর,
গান বাদ্য হালাল বলে চ্যলেঞ্জ করে
বাউল শরীয়ত সরকার।
অথচ আমি আর তুমি কাঁদা ছুড়ি
সস্তা ভালোবাসার টানে।
গদবাধা গদ্যে মাতাল হই
প্রেমের নামে,
নীল মলাটের খামে।