চিন্তার পরিসীমায় ভেসে চলে ভাঁজ হয়ে পড়ে থাকা
কষ্টের নিরীহ নাব্যতা।
দেখি মননে মননে মনীষার মানসে শ্রেষ্ঠতার অপরিমিত প্রতিযোগ।
না হয় অর্জিত সম্পদের নীলগিরি নীলাচলে, পাওয়া না পাওয়ার
যোগ বিয়োগ।
দেখি পায়ে পায়ে হেঁটে চলা শূন্যতায় পিষ্ট দারিদ্রতাকে
তাচ্ছিল্যের অবারিত আমন্ত্রণ।

কষ্টকে পুষে রাখি যতনে অলিখিত কবিতায় শতবার,
দেখি পকেটে রকেট নিয়ে শূন্যে উড়ে কেউ,
ক্ষমতার দম্ভে না হয় কেউ স্তম্ভিত জনপদে কীট পতঙ্গের মতো
মানুষের খুনে লাল করে স্বদেশ, আকাশের ঐ লালিমার মতো।

অহেতুক আষাঢ়ে খরতার চরাচরে, অকারণ পদপিষ্টতায়
গোলা বারুদের গন্ধে ভারী হয় বাতাস,
কামান আর মর্টারে ফিলিস্তিনে সূর্য ডুবে রোজ।
সিরিয়ায় ধ্বংসের সিড়ি বেয়ে উপরে উঠে ইহুদী মশাল।

হায় সমাজ! হায় সম্রাজ্য !
নিথর দেহে ভরে গেছে মানবতার মাঠ।
বড় বড় বলে রোজ, রুদ্ধ করি কপাট।
নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করি আবার,
জেদ করে গড়িনিতো নিজেই, নিজের মাঝে ইবলিসের অবতার?