অস্থির শহরের ব্যস্ততায় কদাকার জ্যাম,
নষ্ট সময়ের খেরোখাতায় আঁচড় কাটে বিরক্তির নখরে।
সারি বেঁধে বাড়ে যন্ত্রের জট,
ঘর্মাক্ত শরীরে লেপ্টে থাকে ক্ষোভের প্রলেপ।

ধুলো জমা ডাইরীর মতো,ধুলোয় আচ্ছন্ন হয় ইট কাঠের দেয়াল,
অযাচিত খোড়াখুড়ি , নিয়ম ভাঙার খুড়িয়ে চলা পথে,
দুরত্ব বাড়ে ক্লেশের ফিতে মেপে।

বৃষ্টির কাছে জল চেয়ে তরঙ্গায়িত রাজপথে অচেনা সময়,
গতিহীন ম্যানহোলের ঠিকানাবিহীন পথে,
স্তূপীকৃত বর্জ্যের ফেনাভারে প্রলম্বিত হয় জলাবদ্ধতা।
কাগজের নৌকোয় করে রাজপথে মাঝি খেয়া ভাসায়,
পেখম মেলে ইচ্ছে ডানায়।

সূর্যডোবা রাত্রি এলে , ব্যস্ত শহরের অলিগলি , চোরাগলিতে,
মাদকের থাবা খামচে ধরে সময়ের পিঠ।
বস্তির বিলাসী জীবন,ইয়াবার আয়নায় দেখিয়ে দেয়
রাজ মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ।

স্বপ্ন দেখি সমান্তরাল, সময়ের পিঠে নিজেকে ঘুম পাড়িয়ে
উড়ন্ত বিহঙ্গের ডানায়-
অতিক্রান্ত পথে উড়াল সেতুর ডায়নামিক ট্রেন,
অথবা,পথ হাঁটি রোপিত সবুজের বাগান বিন্যাসে,
অথবা ,মসৃণ পীচপাথরের পাশে জলপদ্ম ফোটা লেক ড্রাইভ,
অথবা,আযানের ধ্বনিতে কম্পিত মিনারে চড়ে কুরআনের সুধাপান।

স্বপ্ন দেখি,অপেক্ষায় থাকি, ছোব। ছোঁয়া হয় না।
কে জানে,কবে ? অধরা স্বপ্ন ছোঁয়ার অপেক্ষায়,
একরাশ ক্লান্তি নিয়েই পথ হাঁটি অবিশ্রাম।