ঈর্ষাটা বালিশে
খালি খালি খালি সে
চুপচাপ ঘুম দেয়
চিন্তার সালিশে
ছাড়া কোন নালিশে
বিবেককে চুম দেয়
তাতে আত্মার চারপাশে
ঘোরেফেরে শান্তি
অন্তঃ পীড়ার আর
থাকে নাতো ক্লান্তি
জানি এটা ঘটে না
মানুষের বেলাতে
হয়তবা মহানেরা
পারে এটা মেলাতে
তাই
ঈর্ষাটা আমাদের
চামড়ার তুল্য
আজীবন সাথী সে
যেন মহামূল্য
উলটো মূল্য আরও
দিতে হয় পরিশোধ
কারণ মনেতে জাগা
সীমাহীন মহাক্রোধ
সুচিন্তার রাস্তাটা
করে বসে অবরোধ
যার ফলে যায় জলে
ন্যায় অন্যায় বোধ
ধ্বংস গন্ধ শুঁকে
শয়তান হাসিমুখে
বলে ওঠে নির্বোধ

হয়তবা কাজখানা
করেছিলে খুব দ্রুত
তারপরও হল না
মালিকের মনঃ পুত
একই কাজে সেই জন
সহকর্মীতে অভিভূত
মনেতে দুঃখরা
বেশ খানি অনুভূত
তাই বলে বিবেক কি
হবে তার স্থানচ্যুত?
কর শুভকামনায়
ঈর্ষাকে পরাভূত
সে যেন সর্বদা
মনে থাকে অনাহূত

জানি তুমি তাই কর
এমনি বললাম
অনেক প্যাঁচাল হল
আজকে চললাম।