হাজার বছরের পুরনো গোরস্থানের
নিস্তব্ধ নীরবতায়
কাঁপছিল বাতাসের পেখম গুলো
জোনাকিদের সুখের মিছিল
কালোর মায়াজালে অসহায় বন্দী ...।
দীপ্ত আভার বিরহ ব্যথায়
পুষ্পকলির কচি ঘুম... কাঁদে বেদনায়
অধরা মিলন যদি হায়! অধরাই থেকে যায়-

বিন্দু কণা আলোর ছটা কোথাও নেই
শুধু আঁখি কোনে এক ফোঁটা নীল জল ...
খুঁজে বেড়ায় কোমল প্রভার গভীর অতল
এক থোকা সোনালী রোদ্দুর
আছে কি কোথাও ?

আঁধার তিমির করে চুরমার
আঁকতে পার কি কেউ!
পৃথিবীর ক্যানভাসে নিষ্পাপ রবির মুখ ...।
ছড়িয়ে দিতে পার কি ?
নির্মল কুয়াশার ললাট জুড়ে
একটি উদ্ভাসিত নবীন ভোর –
নিকষ কালোর কফিন ভেঙ্গে
খুলতে পারো ?
নীল আকাশে সাদা মেঘের দোর!

আছে কি কেউ !
আছে কি কেউ !

সূর্যের বুক চিরে বইয়ে দিতে
সুবিশাল আলোর ঢেউ

না ... কেউ নেই ...কেউ নেই
প্রভু...! শুধু তুমি... তুমিই তো সেই !

আমার জীবনের এক একটি দীর্ঘ
অমাবস্যা শেষে
নতুন ভোরের
এক...অদ্বিতীয়
আলোর স্রষ্টা !
তুমিই তো সেই...তুমিই তো সেই !