শুন্যতায় না হয় আরো একবার ভরাডুবি!
জানি, ফিরে পাবার আগে ফিরে আসবে
আবার ফিরে এসেছ...

চৌকাঠ পেরুনো আমার পবিত্র আগ্নেয়গিরি
অথবা এইসব টকটকে জীবন
দূর এক পাহাড়ি ফুলের স্বপ্নের কাঁকলাস!

আমরা যখন পাজরে পাজরে খেলি,
ও খুঁজে এক অলৌকিক ঘোড়ার নিঃশ্বাস;
পার হবে স্বপ্নে আটকে থাকা দুরন্ত বিভ্রম।
ভ্রম ভেঙে আলগোছে নারী হবে গেরুয়া ফুল
অথবা আশ্চর্য কোন এক মায়াবতী মায়াংবা ফুল।

ইস্কাপন, হরতন, চিরতনের বুকে গোলযোগ করে
দলদলে পাসপোর্ট, পাগলামী, ভোঁসভোঁস!
স্বপ্নের ঝোলে টসটসে আমাদের জিভ
তবু মধ্যরাতের হুইসেলে ভর করে ভৌতিক গোল্লাছুট
বুকের যুক্তাক্ষরে ভীষণ গোপনে গড়ায় এক আশ্চর্য মানচিত্র!

বিদীর্ণ ল্যাপটপ-জীবন বিছানায় ছুঁড়ে-
বেদানার স্বাদের মত পথে হাঁটি!
ধারালো সকালে হবো হারানো বিজ্ঞপ্তি
থেকে যাবে অবোধ্য মন্ত্রণা;
এক নিখোঁজ স্যাণ্ডেল প্রাচীন পাহাড়ে
আর নিখোঁজ অন্যপাশ তাঁতের ফানেকে।

হয়ত
একদিন, ঠিক দেখা হবে!
মানুষ যেমন মঙ্গল গ্রহের খোঁজ পায়।
মধ্য-বাতাসের মুখোমুখি হবে আকুলতা।
অপেক্ষাকাতর এক ঘাসপাখি অথবা
এক কাঠবিড়ালের দিকে তাকিয়েই না হয় শুধোব
'এতদিন কোথায় ছিলেন?' কোথায় ছিলেন?'

ততদিন শুন্যতায় না হয় আরো একবার ভরাডুবি