কাঠবিড়ালিটিকে সকাল থেকে পাওয়া যাচ্ছেনা । সকালে দুধ খেয়ে সেই যে হিমসাগর আমগাছটায় উঠলো, তারপর থেকে ওকে আর কেউ দেখেনি । প্রিয়াঙ্কার খুব আদরের কাঠবিড়ালিটি । প্রিয়াঙ্কার বাবা বেসিক স্কুলের শিক্ষক । বাথনা গ্রামের বাথনা বেসিক স্কুলের এক ছাত্র প্রিয়াঙ্কার বাবাকে কাঠবিড়ালির বাচ্চাটিকে দিয়েছিল । খালি চকের বাক্সে ভরে ওর বাবা কাঠবিড়ালির বাচ্চাটিকে বাড়ীতে নিয়ে আসে । ছোট্ট ইঁদুর ছানার মত দেখতে । সবাই ভেবেছিল বাঁচবেনা । কিন্তু প্রিয়াঙ্কার মা রাজেশ্বরী ড্রপারে করে ফোঁটা ফোঁটা দুধ খাইয়ে বাচ্চাটিকে বড় করে তোলে । সারাদিন কাঠবিড়ালির বাচ্চাটি খেলে বেড়ায় । প্রিয়াঙ্কার হাত বেয়ে মাথায় ওঠে । প্রিয়াঙ্কার মায়ের খোঁপার ভিতরে লুকিয়ে পড়ে, বাবার পকেটে ঢুকে পড়ে । স্কুলে যাওয়ার সময়টুকু বাদে প্রিয়াঙ্কার সময় কাঠবিড়ালির সাথেই কাটে ।কিছুদিন হ’ল প্রিয়াঙ্কার বাবা বাড়ীর কাছের বুঁইচা কে বি় বেসিক স্কুলে বদলি হয়ে এসেছে । প্রিয়াঙ্কা স্থানীয় ফুলিয়া বালিকা বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেনীতে পড়ে । ওর বাবা ওকে ওর বিদ্যালয়ে পৌঁছে দিয়ে নিজের বিদ্যালয়ে যায় । কাঠবিড়ালির বাচ্চাটি তখান প্রিয়াঙ্কার মায়ের কাছেই থাকে ।এখন বাচ্চাটি বড় হয়েছে । সকালে দুধ খেয়ে হিমসাগর আমগাছে ওঠে । ওখান থেকে ফজলি আমগাছ হয়ে নারকেল গাছে চড়ে । সেখানে কুট কুট করে কি যেন খায় । প্রিয়াঙ্কার মা কাঠবিড়ালিটির নাম দিয়েছে কুটুস । সারাদিন কুট কুট করে বলেই এই নাম। অন্য কাঠবিড়ালীর সাথে যাতে মিশে না যায় তাই প্রিয়াঙ্কার বাবা কাঠবিড়ালিটিকে লাল রঙ করে দিয়েছে। অবশ্য রঙিন হতে ও খুব নারাজ ছিল । রঙ করার সময় বাবার হাতে কুট করে কামড়ে দিয়েছিল । তবে রঙ করার ফলে ওকে অন্য কাঠবিড়ালির থেকে সহজেই আলাদা করে চেনা যায় । অবশ্য কুটুস কুটুস করে ডাকলেই, যেখানেই থাক ও লাফিয়ে এসে হাজির হয় । পাড়ার বাচ্চারাও ওকে দেখলেই কুটুস কুটুস করে চেঁচায় । কুটুস কান খাঁড়া করে শোনে, কিন্তু ওদের কাছে যায়না । আসলে কুট্টুস খুব বুদ্ধিমান । প্রিয়াঙ্কা অবশ্য ঠিক জানে কুট্টুস বুদ্ধিমান হবেই । কারণ প্রিয়াঙ্কার বাবার নাম ধীমান । ধীমান মানে বুদ্ধিমান । সুতরাং বাবা যখন কুটুস কে এনেছে তখন ও বুদ্ধিমান না হয়ে যায় না । বাবাকে প্রিয়াঙ্কা খুব ভালবাসে । ২৮শে জুলাই প্রিয়াঙ্কার জন্মদিন । কিন্তু ঐদিন নকশালদের বন্ধ থাকে ।তাই লোকেরা ওকে ভাল উপহার দিতে পারেনা । তাতে এখন অবশ্য প্রিয়াঙ্কার খুব একটা দুঃখ নেই । কারণ জন্মদিনের দিন কুটুসের কাণ্ড দেখে সবাই হেঁসেই কুটিপাটি হয় । এই জন্মদিনের কেক-এর উপড়ে উঠছে , আবার দৌড়ে প্রিয়াঙ্কার মাথায় উঠছে । বাচ্চারা বেজায় খুশি । প্রিয়াঙ্কার বাবা ভাল ছবি তুলতে পারে । জন্মদিনের দিন অনেক ছবি তুলেছে । কুটুসের ছবিগুলো সবচেয়ে ভাল উঠেছে । কুটুস দু’পায়ে ভর দিয়ে দাঁড়াতে পারে । ঐ ছবিটা সবচেয়ে ভাল উঠেছে । সেই কুটুসকে কিনা পাওয়া যাচ্ছে না ! প্রিয়াঙ্কা আর স্কুলে গেলো না । বাবার সাথে কুটুসকে খুঁজতে বের হল । ওদের বুঁইচা বসাক পাড়ায় সবাই কুটুসকে চেনে । কেউ কুটুসকে সেদিন দেখেনি । সব গাছের কাছে গিয়ে কুটুস কুটুস করে চেঁচালো। অনেক কাঠবিড়ালি লেজ তুলে এ ডাল থেকে সে ডালে ছুটে গেল , কিন্তু কুটুসকে দেখা গেল না । ওরা ঘোষ পাড়ায় গেল । ঘোষ পাড়ার লোকেরা প্রিয়াঙ্কার বাবাকে খুব ভাল করে চেনে । কারণ বুঁইচা ঘোষ পাড়াতেই প্রিয়াঙ্কার বাবার স্কুল । বাবার স্কুলকে সবাই তেঁতুল তলা স্কুল বলে । কারণ একটা বিরাট তেঁতুল গাছের তলায় ঐ স্কুল প্রথমে চালু হয়েছিল । সেটা অবশ্য ১৯৪৮ সালে । তখন থেকেই লোকের মুখে মুখে ওটা তেঁতুল তলা স্কুল । স্কুলটি বড় । বর্তমানে দোতলা হয়েছে । প্রিয়াঙ্কা বাবার সাথে স্কুলে গেল । তখন স্কুলের দিদিমনিরা এসে গেছেন । ছাত্রছাত্রীরাও এসেছে । চম্পা দিদিমনি জিজ্ঞাসা করল কি হয়েছে ? প্রিয়াঙ্কার বাবা চম্পা দিদিমনিকে সব খুলে বলল । চম্পা দিদিমনি খুব ভাল । পুরো নাম চম্পা মোদক । খুব বুদ্ধিমতি । রানাঘাটের কাছে নন্দীঘাট থেকে আসে । দিদিমনি সব ছাত্রছাত্রীদের জিজ্ঞেস করলো কেউ লাল কাঠবিড়ালী দেখেছে কিনা । একজন বলল রায় পাড়ার বিশ্ব নামে একটি ছেলে সকালে একটি লাল কাঠবিড়ালি ধরেছে । সাথে সাথে যাওয়া হ’ল বিশ্বদের বাড়ী । বিশ্ব ছেলেটি খুব দুষ্ট । ওদের বাড়ী গিয়ে দেখা গেল বিশ্ব দড়ি দিয়ে কাঠবিড়ালিটিকে বেঁধে রেখেছে । দড়ির বাঁধন খুলে কাঠবিড়ালিটিকে ছাড়ানো হ’ল । কুটুস লাফিয়ে উঠে প্রিয়াঙ্কার মাথায় চড়ে বসল । বিশ্বকে ধমক দিল চম্পা দিদিমনি , বলল আর যেন কখনও এমন কাজ না করে । কাঠবিড়ালিটিকে নিয়ে বাড়ী ফিরল প্রিয়াঙ্কা । চম্পা দিদিমনির প্রতি ওর শ্রদ্ধা ভক্তি বেড়ে গেল ।কাঠবিড়ালিটিকে নিয়ে ওর গর্বও অনেক বেড়ে গেল । কাঠবিড়ালিটির শোয়া-র জন্য জুতোর বাক্সে কাপড় দিয়ে সুন্দর বিছানা করা হয়েছিল । সেই বাক্সটিকে এখন নিজের বালিশের কাছে নিয়ে ঘুমায় প্রিয়াঙ্কা । এভাবেই বড় হয়ে উঠছে ওরা । ভালোবাসা শুধু মানুষে মানুষেই হয় না , পশুর সাথেও মানুষের ভালোবাসা হতে পারে , প্রিয়াঙ্কার গর্বের কাঠবিড়ালিই তার জ্বলন্ত উদাহরণ ।।