সর্বহারা এক দুঃখীর মনে
প্রশ্ন উঠিল জাগি
গরীবেরা জন্মায় কি শুধু
দুঃখ পাওয়ার লাগি।

দুঃখতে জীবন শুরু
দুঃখতেই শেষ
কি সুন্দর জীবন দিয়েছেন
খোদা মোদের বেশ বেশ।

করতলাঘাত, এত কিছুই না
লাথিও মোদের জোটে।
হাসতে চাইলে মুখের সেটা
হৃদয়েতে নাহি ফোটে।

কান্না মোদের চক্ষু অশ্রুতে নয়
কান্না সে তো হৃদয়ে
তারি জন্য আপনারা ভাবতে পারেন
ও-বেটা আছেই তো বড় সুখে।

রাস্তায় বসে হাত পাতি যখন
একমুঠো ভাতের জন্য
চার আনা, আট আনা দিয়ে আপনারা
নিজেকে ভাবেন ধন্য।
কেউবা মোদের জঙ্গল ভাবি
ফিরায় না তাদের চক্ষু-আঁখি
কেউবা বলেন অজমূর্খ লোক
পারনা খেতে হাত ও পায়ে খাটি।

কঙ্কাল সার বুড়ো দেহ খানি
চলতে নারাজ,
নারাজ সে দিতে এ জীবন পথ পাড়ি।

মাঝে মাঝে খোদা ভাবি গো তাই
কি হবে বেঁচে থেকে
দুঃখ থেকে মুক্তি পাবো
মোর নিজ জীবনটা গেলে।