ছেলের উপর খুব যে শাসন মা
একটু চোখের আড়াল করিস না
আঁচল ছায়ায় রাখিস ঢেকে ঢেকে।
একটু ব্যথায় কঁকিয়ে ওঠে যেই
কোমল পরশ মাখিয়ে দিয়ে সেই
আদর করিস গহীন বুকে রেখে।

এমন মা তুই কেমন দিলি ছেড়ে
বুকের সোনা বুকের পাজর ফেঁড়ে
নাম লেখালো মুক্তি সেনার দলে।
এখন মা তোর কেমন সময় কাটে
চাঁদ ডুবে যায় সুরুজ নামে পাটে
তোর ছেলে কি ফিরবে সদলবলে।

বারুদ লাশের বিকট গন্ধ আসে
বানের ঢেউয়ে মানুষ পশু ভাসে
সার বেঁধে সব মানুষ দেশান্তর।
বানের তুফান ভাটির টনে টানে
শিউলি ফুলের অচিন গন্ধ আনে
তবুও মা তুই ছাড়লি না এ ঘর।

লাল সবুজের আলোয় সারাদেশে
ভাসছে সবাই স্বাধীনতার রেশে
খুঁজিস কি মা বীর ছেলেদের ভিড়ে।
সবার ছেলেই মিছিল করে ফেরে
গাইছে সবাই যে যার মতো সুরে
তোর ছেলেটা আসলো না আর ফিরে।

তুই মা সবার অবাক করে দিয়ে
খুঁটির মাথার নিশান তুলে নিয়ে
বললি- 'তোমরা দুঃখ ক'রো নাতো,
সবার ছেলেই আসতো যদি ফিরে
ঘুরতো মায়ের আঁচল ধরে ধরে
দেশ তাহলে কেমনে স্বাধীন হতো।'