এ রাজ্য আমার খুব পরিচিত, এখানেই তা শহীদ হয়েছি। সেই কবে স্বাধীনতা পেয়েছি, পেয়েছি কি স্বাদ তার? আজও তাই আঁধারে স্বাধীনতার পথ খুঁজি। আরও কত স্বাধীনতার আমানিসাতে দিন কাটাতে হবে? পূর্ণিমা কি আসবে না, স্বাধীনতার পূর্ণিমা। সস্তায় পাওয়া যায় কি স্বাধীনতা, তবু রক্তে ভেজা সস্তা নোনতা বিস্কুট দিয়ে স্বাধীনতার পথ খুঁজে ফিরি। কতশত ক্ষুধার্ত স্বাধীনতা আঁধারে কাঁদে, তবু বুকে বিশ্বাস নিয়ে থাকি, মোটে আর তো কিছু পথ নিশ্চই স্বাধীন বাংলার দেখা পাবো। আশা আলোতে বুক বাঁধি।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২৫ ফেব্রুয়ারী ১৯৮১
গল্প/কবিতা: ৪টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - বাংলাদেশ (ডিসেম্বর ২০১৯)

ক্ষুধার্ত স্বাধীনতা
বাংলাদেশ

সংখ্যা

nani das

comment ২  favorite ০  import_contacts ২৪
বাবু; ও পথে যাবো নে
বড্ড আঁধার যে,
হা-ভাতে’র দল দু’হাত বাড়িয়ে।
ওরা কারা?
সে কি গো বাবু! তুমি বুঝি এ রাজ্যে নতুন?
কিছুই যে জানো নে;
ওরা স্বাধীনতার ক্ষুধার্ত মরা।

তুমি যাও গো বাপু; নির্ভয়ে যাও
বাবু; আজ কি আমাবস্যে-
নাকি পুন্নিমে গো?
ঠিক ঠাওর করতে পারছি নে।
আজও আমাবস্যে;
এ আবার নতুন কি? সেই কবে আঁধার নেমেছে
পুন্নিমেতো আসেনে বাবু;
ও পথে যাবো নে।

ওটাই যে স্বাধীনতার পথ গো
তুমি যাও, এ আধাঁরে বাঁচাও।
জল খাবে?
নোনতা বিস্কুট আছে নেবে?
এটুকুই তো পথ, চল না গো।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement