দু’টি চোখ অবাক তাকিয়ে আছে পরস্পরে আকাশে মেঘের নিনাদ উড়ে।
কিছু কালো পুঞ্জীভূত মেঘের পৃথিবী দু’চোখে স্বপ্ন জুড়ে।
মনের কিনারায় উপচানো যেন বৃষ্টিজলের কলতান।
পৃথিবীর প্রতি বাঁকে ঘেরা প্রেমের পদ্ম জীবনের কথা বলে ভালোবেসে কতো গান।
হৃদয়ের টানে চোখ আঁকে আরেক চোখে-
বাকি জীবনের ছন্দে ঘেরা ক্ষণিকে ক্ষণের অবাক প্রতিদান।
একদিন অসময়ে হঠাৎ বৃষ্টি এলো-
ভিজিয়ে দিলো প্রথম ছোঁওয়ার নিবিড় জোড়া দেহ যেন-
তিরতির করে হিমেলের গুঞ্জনে কাঁপন তবে এলো মনে কেন?
বৃষ্টির রাজ্য জুড়ে প্রেমের অভিধান,
মনের কিন্নরীতে বৃষ্টিজলের চাঁপা জাদু সর্বসময়ে লাজুক স্বপ্নের মতো প্রণিধান।
যুগলের মনের বৈরাগী অন্বয়ে খোলা বাতাসের চাওয়া মেঘের পাহারা-
কখনো কখনো কিঞ্চিৎ দুষ্টুমি ভরে শীতল করে দেহ ভিজিয়ে দেয়া।
প্রেমের রাজ্যে বৃষ্টি যেন আকাঙ্ক্ষিত এক চাওয়া।
যে বৃষ্টি দিনে বা রাতের নিরালায়ও ঝিরিঝিরি খোলাচুল ভেজানো-
কখনো কোন কিসের বাঁধনে জোরালো এক লাবণ্য মন জুড়ানো হাওয়া।
বৃষ্টি আর প্রেম পাশাপাশি দুই বন্ধু যেন মনে হয় চলে ফিরে অবিরাম,
প্রেম জমে না বৃষ্টি না এলে; কেউ কি আছে এমন ভালোবাসে না সুগভীর টানে-
ফোঁটায় ফোঁটায় কতো অতন্দ্র গভীর মানবিক প্রেম আর বৃষ্টির দাম?