শিক্ষার প্রকৃত পথ থেকে বেড়িয়ে এসে শিক্ষিত সমাজের কিছু সংখ্যক ব্যক্তির দুর্বৃতায়ন জাতিকে লজ্জিত করে। যাদের উদ্দেশ্য ছিল দেশ গড়ে তোলা দেশকে সামনে এগিয়ে নেওয়া। অথচ হীন স্বার্থে সে নিজেই দেশকে পিছিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। তাই এক আদর্শ শিক্ষকের বিবেক নিজেকে দায়ী করে লজ্জিত হয় । সকল দায় তাঁর কাঁধে নেয়। এই দিক চিন্তা করে বিষয় বস্তুর সাথে সামঞ্জস্য খুঁজে পাই। আজ শিক্ষিত লোকের কু কর্ম সকল লজ্জা কে হার মানায়।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২ মে ১৯৭৬
গল্প/কবিতা: ২টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - লাজ (জুন ২০১৮)

কলঙ্কিত শিক্ষা
লাজ

সংখ্যা

Shamima Sultana

comment ১১  favorite ০  import_contacts ১১১
কষ্ট গুলো লজ্জার মোড়কে ঢেকে,
এক জ্ঞান দানকারী পথ প্রদর্শক নিজেকে আড়াল করে।
তার আজীবন লালিত শিক্ষার চারণ ভুমি বর্গীদের দখলে,
সেই অনাহুত কষ্ট বুকে চেপে এই জঞ্জালে ঘেরা ধরার বুকে আজও বেঁচে।


স্বার্বভৌমত্বের পর থেকেই শিক্ষার মন্ত্র পাঠ রত ছিল যে,
তাঁর আদর্শ গেঁথে দিতে কতনা তপস্যা কত শস্য ফলাল শিক্ষার মাঠে।
বলেছিল প্রিয় সন্তান সম শিক্ষা যাত্রী ,
এই দেশ তোমার আমার সকলের প্রাণ প্রিয় অতি।
তোমরা তৈরি হও গড়ে তুলবে নতুন স্বপ্ন আশা, বুকে নিয়ে সুদিনের।

আজ সারা বাংলার এপ্রান্ত থেকে সে প্রান্তে সেই সব শিক্ষার্থী,
বড় হুকুম দাতা,নেতা,আমলা, বড় অফিসের বস কেউবা মন্ত্রী।
তাঁর দেয়া শিক্ষার জ্ঞান উল্টো পথে করছে প্রয়োগ,
নিজের স্বার্থে জলাঞ্জলি দেশ মাতৃকা, করছে অন্যায় ভাবে দখল ভোগ।


অন্ধত্ব ভাল ছিল, দুই কান বধির হলে ক্ষতি কি ছিল?
জরাক্রান্তে যত না ক্লান্ত তার চেয়ে ক্লান্ত বেশি
তাঁর গড়ে তোলা দুর্বৃত্তের কাজ কর্মে ।
সমাজের অন্যায় বলাৎকার স্বৈরাচার ভূখণ্ড-দখলদার
সব সবই তাঁর তৈরি শিক্ষার্থী
করছে নির্দ্বিধায়।
এই অরাজকতার দিনক্রান্তিতে সে নিজেকেও করে দায়ী!
হয়ত ভুল ছিল জ্ঞানদানে, ভুল ছিল শিক্ষার পরিধি ।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন
  • মোঃ নুরেআলম সিদ্দিকী
    মোঃ নুরেআলম সিদ্দিকী অন্ধত্ব ভাল ছিল, দুই কান বধির হলে ক্ষতি কি ছিল?
    জরাক্রান্তে যত না ক্লান্ত তার চেয়ে ক্লান্ত বেশি
    তাঁর গড়ে তোলা দুর্বৃত্তের কাজ কর্মে ।
    সমাজের অন্যায় বলাৎকার স্বৈরাচার ভূখণ্ড-দখলদার
    সব সবই তাঁর তৈরি শিক্ষার্থী
    করছে নির্দ্বিধায়।
    এই অরাজকতার দিনক্রান্তিতে সে...  আরও দেখুন
  • সেলিনা ইসলাম
    সেলিনা ইসলাম প্রথমেই গ.ক-পরিবারে স্বাগত জানাই। শিক্ষার হার বাড়লে সুশিক্ষিতের সংখ্যা যে কতটা কম তা দেশের বর্তমান অবস্থা দেখলে বুঝে নেয়া যায়। দেশকে এই শিক্ষিতরাই উন্নতির পরিবর্তে ধ্বংস করে দিচ্ছে। যা পুরো জাতির জন্য লজ্জার। চমৎকারভাবে বাস্তব চিত্রটি কবিতায় তুলে ধরেছেন ...  আরও দেখুন
  • রবিউল ইসলাম
    রবিউল ইসলাম খুব সুন্দর ভাবে সমাজের জ্ঞান পাপীদের চিত্র তুলে ধরেছেন। শুভ কামনা ও ভোট রইল। আমার পাতায় আমন্ত্রণ রইল প্রিয় কবি।
    • Shamima Sultana ধন্যবাদ বন্ধু, অবশ্যই আপনার পাতায় আসব।পাশে পাব সব সময় সেই আশা করি । অনুপ্রেরণা দেবার জন্য ধন্যবাদ
  • মোঃ মোখলেছুর  রহমান
    মোঃ মোখলেছুর রহমান স্বাগতম, ভাল লিখেছেন,চর্চা চলুক এই প্রত্যাশা।
  • জামশেদ রোমেল
    জামশেদ রোমেল শুভ কামনা আপনার জন্য। খুব প্রয়োজনীয় লজ্জাটাই আমাদের এখন খুব কম। আপনি সেটা দেখাতে সক্ষম হয়েছেন। অভিনন্দন আপনাকে।
  • তানি হক
    তানি হক আমাদের বিবেক জাগ্রত হোক। সুন্দর লিখেছেন।
  • নাজমুছ - ছায়াদাত ( সবুজ )
    নাজমুছ - ছায়াদাত ( সবুজ ) শিক্ষা প্রকৃত হতে হবে। হৃদয়ে আত্মস্থ করতে হবে। যারা এই সম্মান মাথায় নিয়ে সমাজে কুলসিত করে যাচ্ছে । তাদের সমাজ ভাল চোখে দেখে না, আর সে আল্লাহর কাছে মহা পাপি । চমৎকার বিষয় বস্তু । কবিকে সুভেচ্ছা ।
  • ওয়াহিদ  মামুন লাভলু
    ওয়াহিদ মামুন লাভলু কোনো জ্ঞান দানকারী যদি দেখেন যে তিনি যেখানে জ্ঞান দান করেছেন সে জায়গা আজ বর্গীদের দখলে তবে কষ্ট তথা লজ্জা পেয়ে নিজেকে আড়াল করা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না। অনেক ভাল লাগল আপনার কবিতাটি। আমার শ্রদ্ধা গ্রহণ করবেন। আপনার জন্য অনেক শুভকামনা রইলো।
  • নুরুন নাহার  লিলিয়ান
    নুরুন নাহার লিলিয়ান শব্দ আর ভাবনার সুন্দর উপস্থাপন । অনেক শুভ কামনা ।
    প্রত্যুত্তর . ৯ ঘন্টা আগে
  • জামাল উদ্দিন আহমদ
    জামাল উদ্দিন আহমদ বলেছিলাম এক ফাঁকে আপনার বাড়িতে উঁকি দেব। এসে গেলাম। অনুপ্রাণিত হলাম এই দেখে যে আপনার ভাবনা খুব ভাল। প্রকাশ করতেও চেয়েছেন সুন্দরভাবে। আমার বিশ্বাস, আরও কয়েক পা এগুলেই আপনি দৃঢ় হয়ে উঠবেন। সেই দিনের দিকে তাকিয়ে অনেক শুভেচ্ছা।
    প্রত্যুত্তর . ১ ঘন্টা আগে

advertisement