কি সুর শুনাবে শুনাও
অতসত নেই বাপু দেমাগের তনু-
হাত ধরে নিয়ে চলো তোমার অলিন্দে,
কাজরির ঢঙে-
একফালি হাসি চিরে আমার অন্দরে
দিও, দেবে কি টোকা!
ছেলের হাতের মোয়া ভেবে না হয় নিও
বৃষ্টির চেনা সুরে কদমের রোয়া।

স্থির-চোখে চেয়ে থাকা যমুনার জলে
ভালবাসা বাসি হয় সকাল দুপুর,
বধুয়ার মধুমাখা ছল! কি পিছল!
ভজনে ভেঁজেনা ক্ষীণ সুরের নূপুর;
তুলে দিও তাতে, কিছু ভাঙা সুর।
ঝাল-নুন চেকেচেকে দিওগো সন্ধান-
কতটুকু মিশে আছে অরূপের ভেজাল,
যে খাবারে মিশে থাকে তোমার সকাল।

যা দেবে তাই নেব ,দুহাত সরায়ে-
ছুঁয়ে দাও মন মুকু অলস বেলায়,
সাদাকালো বাসি বলে করোনা হেলা-
হাত দিয়ে না নিলেও, নিও তুলে
পা দিয়ে জড়ায়ে।

নয়নে নয়ন রেখে দিওগো বুঝায়ে
যত বাণি যত সুর আলো-
এ বিশ্বের খেলা,
দেখিনি যা দিওগো দেখায়ে
আমার করুন সুরের বেলা।

বুঝিনা তানপুরা তবলা ফেলে
কি সুরে গায় ভালবাসা অদেখা অবলা হলে।