পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ একজন মানুষ "বাবা"। নিজে পুড়ে, কষ্ট পায় তবুও সন্তানকে দেয় না। সন্তানের মুখের একটু হাসির জন্য নিজে হাজার কষ্ট সহ্য করে নেয়। আবেগে অনেকে বলে মেঘ, বৃষ্টি, বরফ, আগুন..... কি, বাবারা বুঝার চেষ্টা করেন না! আমার এই "বাবা" কবিতাতে আমি একটা আকুতি তুলে আনার চেষ্টা করেছি মাত্র। একবছর বয়সে বাবাকে হারিয়েছি। বাবাকে দেখার অনুশোচনা কোন সন্তানেরই না থাকে? আর বাবাকে ছাড়া এক একটা পরিস্থিতি যেন প্রতিদিন তুষানলে পোড়া আগ্নেয়গিরি। জানি মৃত ব্যক্তি আর আসবে না, আর জেগে উঠবে না--- (অবয়ব কিয়ামত ছাড়া)। তবুও বাবাকে না দেখার যে অন্যরকম একটা আকুতি, সেই আকুতিটাকে আবেগে বলা হয়েছে..... আর এলে না। আশা করি, কবিতাটি বিষয়ের সাথে সামঞ্জস্যতা পাবে।
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১২ মার্চ ১৯৯৭
গল্প/কবিতা: ৪৪টি

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - বাবা (জুন ২০১৯)

বাবা
বাবা

সংখ্যা

মোঃ নুরেআলম সিদ্দিকী

comment ৮  favorite ০  import_contacts ১৪৭
বাইশটি বসন্ত পেরিয়ে এসেছি বলা হয়নি না বলা কথা
সাগরের কাছেও হাজার প্রশ্ন জমায়, উত্তর পাই না!
এই যে উন্মাদ হয়ে হেটে চলি, নিরুত্তাপ ঢেউ খেলি জমিনে
অটোক্রেসির নিয়ম, ক্রেবেস চক্র....., সাইন্টিফিক সূত্র কোনকিছু বাদ রাখি না;
কখনো মেঘ, কখনো বৃষ্টি আর কখনো রৌদ্রতেজে বিষণ্নতা আঁকাই মন,
তবুও যেন মিলে না, মিলাতে পারি না এ সমীকরণ!

এইদিক-ঐদিক তাকায়, শোকেস দেখি, তন্নতন্ন করে খুঁজি ডায়েরীর পাতা;
একান্ত পুড়ি, একান্ত নির্দ্বিধায় জমে সমস্ত আঁধার-
অমন করে মিনতি আঁকি, বৃষ্টির স্রোতে আকাশকে লিখি,
অমন করে অদৃশ্য দেয়াল ভেঙে বুকের ভিতর বিমর্ষ শব্দ তুলে দিই
কিছুই হয় না, কোনভাবেই ফলাফল শূন্য ছাড়া আর কিছু আসে না!

কখনো বজ্রকণ্ঠে নীলামে তুলি শ্রাবণ, কখনো পাগল হয়ে চুলকায় এলোচুল
কখনো থমকে দেয় বিষণ্নতার এক একটি লাল প্লাকার্ড,
বুকের ভিতরে দুমড়ে ফেলি, মুছড়ে ব্যাকুল হয় পরাণ!

তুষানলে পোড়া কত দিন পেরিয়ে রাত.....বিষাদের শহরে বয়ে চলা নির্ঘাত সেই কতটি বছর,
বাবা সে যে তুমি চলে গেলে, আর এলে না!

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement