বাইশটি বসন্ত পেরিয়ে এসেছি বলা হয়নি না বলা কথা
সাগরের কাছেও হাজার প্রশ্ন জমায়, উত্তর পাই না!
এই যে উন্মাদ হয়ে হেটে চলি, নিরুত্তাপ ঢেউ খেলি জমিনে
অটোক্রেসির নিয়ম, ক্রেবেস চক্র....., সাইন্টিফিক সূত্র কোনকিছু বাদ রাখি না;
কখনো মেঘ, কখনো বৃষ্টি আর কখনো রৌদ্রতেজে বিষণ্নতা আঁকাই মন,
তবুও যেন মিলে না, মিলাতে পারি না এ সমীকরণ!

এইদিক-ঐদিক তাকায়, শোকেস দেখি, তন্নতন্ন করে খুঁজি ডায়েরীর পাতা;
একান্ত পুড়ি, একান্ত নির্দ্বিধায় জমে সমস্ত আঁধার-
অমন করে মিনতি আঁকি, বৃষ্টির স্রোতে আকাশকে লিখি,
অমন করে অদৃশ্য দেয়াল ভেঙে বুকের ভিতর বিমর্ষ শব্দ তুলে দিই
কিছুই হয় না, কোনভাবেই ফলাফল শূন্য ছাড়া আর কিছু আসে না!

কখনো বজ্রকণ্ঠে নীলামে তুলি শ্রাবণ, কখনো পাগল হয়ে চুলকায় এলোচুল
কখনো থমকে দেয় বিষণ্নতার এক একটি লাল প্লাকার্ড,
বুকের ভিতরে দুমড়ে ফেলি, মুছড়ে ব্যাকুল হয় পরাণ!

তুষানলে পোড়া কত দিন পেরিয়ে রাত.....বিষাদের শহরে বয়ে চলা নির্ঘাত সেই কতটি বছর,
বাবা সে যে তুমি চলে গেলে, আর এলে না!