স্বপ্ন দেশে আমি এক রমণী দেখেছি, হাজার রূপের মাঝে এক রূপসী পেয়েছি।
যারে দেখলে কেউ জীবনে কভু ভোলেনা, দৃষ্টিগোচর হলে পরে চোখের পাতা নরেনা।

পরিচয়টা রেখেছে গোপন নামটাও বলেনি,
সে যে আমার স্বপ্নে দেখা রূপসী রমণী।

টকটকে রঙে আঁকা তার দুটি ঠোঁট, মনে হয় গোলাপ ফুটেছে।
ঝকঝকে দাঁতে গাঁথা তার লাল মাঢ়ী,মনে হয় মুক্তায় গেঁথেছে।

এমন সুন্দরী আমি আগে দেখিনি,
সে যে আমার স্বপ্নে দেখা রূপসী রমণী।

আকর্ষণীয় বুক তার মিহি লম্বা কটি, বোধয় শিল্পী ধ্যানে এঁকেছে।
দুধে আলতা কায়া তার নিখুঁত কাঠামো, বোধয় স্রষ্টা হাতে গড়েছে।

কোমর দুলিয়ে পথ চলেছে ফিরে দেখেনি,
সে যে আমার স্বপ্নে দেখা রূপসী রমনী।

কাজল কালো কেশ তার জুলফির সাজে রূপ,যেন মেঘ এসে মাথায় নেমেছে।
লাভ আঁকা কপাল তার কালো চিকন ভুরু,যেন ডানা কাটা পরী নেমেছে।

হাতে অরুণ মেহদী চোখে এন্টিমনি,
সে যে আমার স্বপ্নে দেখা রূপসী রমণী।

গাল বেয়ে তার জোছ্না ঝরে মিষ্টি মধুর হাসি,সে যে এক কুমারী রমণী।
ডাগর কৃষ্ণ চোখ তার আপেল যেমন থুতনি,আজৌ আমি তারে ভুলিনি।

ঠোঁটের উপর ছোট্ট তিল মায়াবী চাহনী,
সে যে আমার স্বপ্নে দেখা রূপসী রমনী।