অন্ধকারে বিবেকের আড়ালে হাত বাড়ায় নগ্ন পাপী হাত
খুলে নেয় সমগ্র গায়ের সমস্ত নিবারণ...
দুধের মতো সাদা নারী!

উচু-উচু পাহাড়ের চূড়া থেকে গভীর সাগরে পতন
ভাসতে থাকে জোয়াড়ে... কোথাও কোনো কূল নেই
সূর্য নেই, চন্দ্র নেই, আলো নেই
চারদিকে শুধুই অন্ধকার... এক আদিম অন্ধকার!
আর কিছু নয় শুধু অথৈ জল... লাল-নীল!

পাল্টে গেছে দিন, পাল্টে গেছে রাত এখন
নগ্নতার দেবী ক্রমশ কাপড় খুলছে...
সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়ছে পূজো দিতে-- ধ্যানে-জ্ঞানে
স্বয়নে-স্বপনে, কোথাও এতটুকু ফাকি নেই ভক্তির...
ফাইলগুলো ঠিকই পড়ে আছে মোটা খামের আশায়;
চোখ শুধু খুজে ফেরে শক্ত কাধের সিড়ি;
জবরদখল নীতিতে দূর্বলের নাভীশ্বাস;
যৌতুকের যাতাকলে বলি হলো অভাগী;
মামা-চাচার অভাবে ভেঙে গেল স্বপ্ন, কোনো ফাকি নেই!
ভরপেট ভোজন করে, চেয়ে রয় নির্লজ্জ উপোসি!

তাকালেই সমাজের চারদিকে অশ্লিল নগ্নতা
কী রাস্তাঘাটে কী ঘরের টিভিতে কী নেটে... কোথায় নয়?
কী দেখছে কী শিখছে উত্তর প্রজন্ম!
সময় কি হয়নি আজও ভেবে দেখার?


প্রতিদিন খবরের কাগজের দুঃসংবাদ দিয়ে দিন শুরু
অশুভ হাওয়ায় শুধু ভেঙে যায় বন্ধন, হয়ে যায় খুন
যেখানে সেখানে দেখা দেয় ফাটল
আর লাশ হয়ে পড়ে থাকে ধর্ষিত নারীদেহ।