বসে আছি নির্ঘুম চোখে
চারিদিকে নিঝুম নিস্তব্ধতার গাঢ় অন্ধকার
তারই ফাঁকে ফাঁকে
জোনাকি পোকার মিটিমিটি আলো
আগুনে ঝলসানো জ্যোৎস্নার বাহারি রূপ,
ছোট্ট কুটির এ বেড়ার ফাঁক দিয়ে
শীতল বাতাসের আগমনী
প্রসারিত দু-হাত বাড়িয়ে স্পর্শ করি তোমাকে
মাটির গন্ধ শুকে নেই তোমার শরীর থেকে,
আহ! কি সুখ !
আমি হারিয়ে যাই
আমি পাগল হয়ে যাই
তোমার ভালোবাসায় মুগ্ধ হয়ে
প্রকৃতির সাথে মিলেমিশে বিলীন হয়ে যাই... . . . ।

ভোরের আলো ফুটে উঠে
ঘরের দরজা খুলে সকালের স্নিগ্ধ বাতাসে
আমি দীর্ঘশ্বাস নেই
কি বিশুদ্ধতা !
কি নির্মল বাংলার এই গ্রাম !

শহরের ঐ কংক্রিট জীবন থেকে
পালিয়ে এসেছি আমি তোমার কাছে
তোমার এই সবুজ ঘেরা কাঁদা-মাটির গ্রামে ,
পীচ ঢালা পথ ছেড়ে দিয়ে
তোমার হাতটি ধরে
গাঁয়ের মেঠো পথে হাঁটবো আমি ,
বনকলমী লতার কাছে গিয়ে শুধাবো,
কেমন আছো ?
আমি তো এখন ভালো আছি
বেশ আছি ,
তোমাদের সান্নিধ্যে।।