বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।
Photo
জন্মদিন: ৬ জুন ১৯৮২

keyboard_arrow_leftসাহিত্য ব্লগ

আজন্ম তৃষ্ণা

ড. জায়েদ বিন জাকির শাওন

  • advertisement

     

    ওরা লাশ নিয়ে চলে গেল
    ঐতো এখনও দেখা যায়, বেশ দূরে।
    আমি কখন থেকে ওদের পিছু পিছু দৌড়ে চলি-
    কিন্তু আমি যে এখনও ওদের নাগাল পেলাম না।
    বারবার কাঁদায় আছড়ে পড়ি-
    সারা শরীর নোংরায় মাখামাখি;
    আমি তবুও চলতে চেষ্টা করি; হায়
    এখনও তো ওদের ধরতে পারলাম না।
    কয়েক কদম হাঁটি-
    পায়ের নিচে নেই মাটি!
    আমি হতাশ হই না-
    আমাকে যে যেতেই হবে ওদের কাছে।
    আমি তো এখনও লাশটা দেখতে পেলাম না।
    তবে কি ওরা আমাকে দেখতে দেবে না?
    ভীষণ কান্না পেয়ে গেল-
    এইবার আমি হামাগুড়ি দেই;
    ওদের তো আর দেখা যায় না।
    চিৎকার করে বলি-
    আমাকে ফেলে যেও না।
    আমি যে রয়ে গেলাম এখানে-
    আমাকে একটি বার দেখাও।
    সমস্ত ব্যথা উপেক্ষা করে আমি উঠে দাঁড়াই;
    আর বেশী সময় নেই।
    এখনি মনে হয় লাশ কবরে নামাবে।
    শরীরের সব শক্তি এক করে আমি চলি,
    আর নিজেকে সান্ত্বনা দিয়ে বলি-
    এইতো আর একটু পথ।
    পায়ে পায়ে চলে এলাম গোরস্থানে।
    কবরের পাশে লাশ।
    নামানোর আগে একবারের জন্য খুলে দিল মুখটা!
    আমি দেখলাম।
    এযে আমি নিজেই।
    নিজেকে শেষবারের জন্য দেখতে চেয়েছিলাম।
    দেখে নিলাম।
    হয়ত এরপরে আর নিজেকে দেখতে পাবো না।
    আমার লাশ!
    আমি তো চিনতে পেরেছি!
    আমার ভুল হয়নি।
    আমি ভুলে যাই নি।
    জন্ম জন্মান্তরের লালিত আমার সুপ্ত তিয়াস
    মিটে গেল! যখন আমি দেখলাম
    আমার নিজের লাশ।

     

advertisement

  • সাইফুল করীম
    সাইফুল করীম ভাই- গদ্য কবিতা/ মুক্ত ছন্দের আদলে গড়া গদ্য-কবিতা/ বা আপনার নিজের কোন উদ্ভাবিত ফরম্যাট নিয়ে কাজ করার মনে হয় সময় এসে গেছে আপনার। কবিতার বিষয়বস্তু কিন্তু তাই বলে-মনে কবেন না কিছু আউল ফাউল বলাতে......
    প্রত্যুত্তর . ১০ মার্চ, ২০১২
    • ড. জায়েদ বিন জাকির শাওন আরেকটু গুছিয়ে বলুন! আমি ঠিক বুঝলাম না!
      ১০ মার্চ, ২০১২
    • সাইফুল করীম প্রথমে বলি আপনার কবিতার গঠন বিন্যাস নিয়ে, লিখেছেন কিন্তু মাঝে কোন প্যারা দেন নি। প্রথম পুরুষে লিখা কবিতাতে সার্বজনীন মৃত্যুর যে চিরন্তন ভয়াবহতা আছে তা হয়ত অনেকটাই ম্লান হয়েছে। মাঝে মাঝে অন্ত্যমিল দিয়েছেন কিন্তু শেষ অব্দি পর্যন্ত সেটা থাকে নাই। অন্ত্যমিল জুড়ে দিলেই কবিতা যেমন হয়না- তেমনি তার ধারাবাহিকতা কে বাহন করে নিয়ে যাবার জন্য বাক্য গুলোর মধ্যে শব্দের আরো সংকোচন ভাব ফুটিয়ে তোলা দরকার বলে মনে করি। এর সাথে যদি উপমার বিষয়টি জুড়ে দেন- তবে মনে হয় একটি আধুনিক কবিতা গড়ে উঠতে পারে। আর আপনি ত বিদেশি লিমেরিক, অট্টাভারিমা, ইত্যাদি ফরম্যাট নিয়ে কাজ করছেন তাই বলছিলাম ফরম্যাট যা করার আপ্নাকেই তৈরি করতে হবে। ভাল থাকুন।
      ১০ মার্চ, ২০১২