কেমন ছড়াও তুমি, ছড়িয়ে পড়ো – নিঃশব্দ নিস্তরঙ্গ
দিগ্বিদিক ডানেবাঁয়ে উপরে ও নিচে
শুষ্ক ধবল মেঘের মঞ্জরিতে – বৃক্ষ ও পল্লবে।
ফিঙ্গের লেজে শিহরিত হও মৃদুমন্দ হাওয়ায়
জোড়াশালিকের চঞ্চুতে বসে খুটখুট চুম্বন।

 

উদ্ভ্রান্ত খুঁজি আমি তোমাকে ঊষার আঁচল ফুঁড়ে
কাঁঠালচাঁপার হলুদে আর দূর্বাডগার শিশিরে
ঘুমভাঙ্গাপথে আর ঘন সবুজের বনে – কীযে সুরভি!
কবোষ্ণ রবি সুরমা আঁকে তোমার চোখে
এবং আমার। সম্মুখে মৃদুমন্দা তুরাগ –
এসে গেছি তবে, প্রতিদিন আসি, অলক্ষ্য টানে
ছোঁব জল, এখুনি ছুটবো জলে, এখুনি মৃদুতরঙ্গ।

 

বুঝিনা আমি, তুমিও বৃথা খোঁজো মানে
কেন রই বসে মুখোমুখি অপলক চোখ, হাতে হাত -
টুপ করে নামে মাছরাঙ্গা পাখি, ছিটায় ডানার জল।
ভর কোরে ঠোঁটে অস্ফুট কথা আর্দ্র কম্পন
কিছু নেই নেবার, দেবারইবা কী – তবুও তুমি
তবুও আমি রচনা করি সোনালি-রুপালি প্রত্যুষ
মিলে যায় হাওয়ায় মিশে যায় আকাশে আর্ত আকুতি
যুথবদ্ধ শ্বাস লিখে রাখে সময়ের আনন্দগাথা।

 

২৫ ডিসেম্বর ২০১৭