মেয়েটি বলেছিল, সে কখনও সূর্য দেখেনি;
বহুকাল ধরে ছিল, চার দেয়ালের বন্দিনী।
জানে না সে, কে তার পিতা... কে-ই বা তার জননী
ডানাহীন পরীর ঠাঁই হয়েছে পোড়ামুখী ধরণী।
পথ হারানো বেচারি, কোন মায়া বন হরিণী,
মুখে হাসি ছিল কন্ঠে বুঝেছি; সে কতটা দুখিনী
রজনীকন্যা বিলিয়েছিল রজনীগন্ধ্যা মোহিনী।
সকাল দেখার সাধ নেই তার; সে বড় অভিমানী।
বলেছিলাম সঙ্গে চলো, লোকে করুক কানাকানি,
ভুল পথে যাবো না আমি, হাঁটবো ধরে মন সরণি।
রজনীকন্যা হেসেছিল কেবল, যেন কিছু শুনেও শুনেনি...
দেখেছিলাম বন্ধ চোখের পাতায় ফোটা; ফুলগুলো ছিল সব বেগুনি।