জন্ম আমার এই বঙ্গের মাটিতে,
হাজার স্বপ্ন জ্বল-জ্বল করে
আমার চোখ দুটিতে।
ছুটে বেড়াই চারিদিক
সবাই যেন পরশ বোলায়,
সকাল হতে সন্ধ্যা বেলায়।
মায়ের কোলে মাথা রেখে,
আপন মনে চেয়ে থাকি
ঐ অমলিন মুখটির দিকে।
শিখেছি আমার নিজের ভাষা,
তাইতো আমি বলতে পারি
আমার মনের কথা সহসা।
আজি বাংলায় বাস করে,
বাংলা ভাষায় কথা বলি প্রাণ ভরে।
এই ভাষা ছিলনা মোদের,
কত গঞ্জনা সহ্য করেছিল যারা,
দিয়েছিল জবাব, ভেঙ্গে বদ্ধ শিকল
লাথিমেরে ভাষার শত্রুদের।

উর্দু ভাষা হতেই হবে
আমাদের মাতৃভাষা,
১৯৫২ সালে এসেছিল
সেই ভয়াল সময়
কালের সর্বনাশা।
মনের কথা আপন ভাষায়
বলতে পারবনা কি আমি,

আমার ভাষা মায়ের ভাষা
হাজারো ভাষার চেয়ে দামী।
আমাদের ভাষা সৈনিক ভাই
জ্বলে উঠেছিল সেদিন,
২১-শে ফেব্রুয়ারিতে
ভাষার জন্য যুদ্ধ করে ;
বুকের রক্তে রাজপথ
করেছিল তাই রঙিন।
রফিক, শফিক, জব্বার, সালাম, বরকত
আরো কত নাম না জানা ভাইয়েরা,
নিজ মুখে মায়ের ভাষায় বলতে কথা
হলো না যে তাদের ঘরে ফেরা,
ভাষার জন্য জীবন যারা করেছিল উৎসর্গ
পৃথিবীর সব ফুল দিয়ে সাজাবো আমি অর্ঘ।
নির্ভয়ে হাতে জ্বলন্ত পোষ্টার নিয়ে
বুলেটের কাছে সঁপেছিলে তোমাদের প্রাণ,

আমারা তোমাদের ভুলবনা কভু
হৃদয়ের স্মৃতিপটে, অন্তরের গভীরে,
শ্রেষ্ঠত্বের আসনে রবে তোমরা অম্লান।
রক্তের সেই লালচে কালিতে লেখা
বর্ণমালায় সাজানো বাণী
সবার মুখে কথায়- কথায়,
প্রশান্তিতে ঝরছে আবেগ
স্মরণ করে তোমাদের ত্যাগ;
আমার মায়ের ভাষায়।