লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ২৪ জানুয়ারী ২০১৯
গল্প/কবিতা: ৩৩টি

সমন্বিত স্কোর

৩.৬৫

বিচারক স্কোরঃ ১.৪৫ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ২.২ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftআমি (নভেম্বর ২০১৩)

আমাদের খেলার মাঠ
আমি

সংখ্যা

মোট ভোট ১১ প্রাপ্ত পয়েন্ট ৩.৬৫

ছন্দদীপ বেরা

comment ৭  favorite ০  import_contacts ১,০২৩
আমাদের পাড়ায় আমার মোটামুটি দশ বারো জন বন্ধু আছে । আমি তাদের সঙ্গে নিয়মিত খেলাধুলা করি । আমাকে খেলার জন্য ডেকে নিয়ে যায় । আমরা সবাই চাঁদা তুলে ব্যাট বল কিনে রেখেছি । এমন কি ফুটবলও কেনা আছে । এই সব ফ্ল্যাট বাড়ির পাড়ায় মাঝে মাঝে কেউ কেউ চলে যায় , কেউ আবার নতুন করে আসে । আমাদের মোটামুটি সাত আট জন অনেকদিন থেকে আছি ।
এই রকম একদিন বিকেলবেলা আমরা মাঠে খেলতে গেছি । যে মাঠে খেলি সেখানে প্যান্ডেল বাঁধা চলছে , তাই বিকি দের ঘরের সামনের মাঠটায় আমরা খেলার জন্য উইকেট পুঁতে খেলা শুরু করেছি এমন সময় সন্তুর বাবা তাদের বারান্দা থেকে বলছে – এই ছেলেরা , এখানে খেলবি না । মাঠে যা । আর সন্তু উপরে চলে আয় ।
আমি বললাম – আঙ্কেল , মাঠে পুজোর প্যান্ডেল হচ্ছে ।
- আমি ও সব জানি না । যা সব এখান থেকে । বেরো । আমি কিন্তু নীচে গেলে সব লণ্ডভণ্ড করে দেব ।
আমরা ভয় পেয়ে চলে এলাম । আমাদের সব চেয়ে বড় যে মিতুদা সে বলল – সন্তুর বাবাকে এবার জোর করে পুজো কমিটির সম্পাদকের পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছে তাই ওনার রাগ । কারো উপর ঝাড়তে পারছে না তাই আমাদের দেখাচ্ছে ।
আমরাও তাই ভাবছি এখানে জায়গাটা ছোট । খেলার জন্য ঘরের জানলার কাঁচ ভেঙে যেতে পারে । তাও আঙ্কেল কখন না করেন নি । আজ হঠাৎ ।
আমরা ভাবছি কোথায় খেলি না কি করি । সন্তুও সঙ্গে ছিল । ও ছোট তাই বেশি কিছু বলছে না । আমরাও ওর বাবাকে নিয়ে বেশি কিছু বলি নি । সেদিন ভাবতে ভাবতে সন্ধ্যে হয়ে এল । আমরা বাড়ি ফিরে এলাম । পুজোর প্রায় একমাসের বেশি বাকি । তারপর প্যান্ডেল খুলতে আরো পনের দিন । এতদিন আমরা খেলব কোথায় ।
এই ভাবনাই মনের মধ্যে ঘুর ঘুর করছিল তাই পড়াতে ভাল মন দিতে পারছিলাম না । তাই দেখে মা বকল – কি রে কি ভাবছিস । কি বলছি শুনতে পারছিস না ।

- মা , শোন না প্যান্ডেল বাঁধা ...... ।
প্যান্ডেলের কথা শুনে মা আবার বকা দিতে শুরু করলেন । আমি আর কিছু না বলে পড়াতে মন দেওয়ার চেষ্টা করলাম ।
পরদিন আমরা আবার স্কুল থেকে ফিরে জড় হলাম । এদিক ওদিক ঘুরছি । পাশাপাশি ছোট বাচ্চারা ঘুরছে । ফুচকাওয়ালা , আলু-কাবলি , চানা মশলা , আইসক্রিম ওরা সব পর পর দাঁড়িয়ে । বিক্রিও ভাল । আমাদের দেখে ফুচকাওয়ালা বলল – কি দাদারা , খেলছ না ?
আমি ওর কাছে প্রায়ই ফুচকা খাই । ও আমাদের কথা শুনল না কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ল । আমার মাথায় একটা বুদ্ধি এল । সেটা আমি সবাইকে বললাম । তাই শুনে মিতুদা – চল চেষ্টা করে দেখি ।
আমাদের পাড়ার পাশেই একটা প্রাইমারী স্কুলের পিছনে জংলা মতন একটা জায়গা আছে । এক রবিবার আমরা দল বেঁধে পরিষ্কার করতে লেগে গেলাম । সে রকম কেউ বাধা দিল না । বাড়িতে আমি কিছু বলিও নি । বড় বড় গাছগুলো থাকল , পুরো জঙ্গল সাফ করতে সপ্তাহ মত লাগল । তারপর আমরা খেলা শুরু করলাম যেদিন সেদিন বাধা কিছু লোক এল সঙ্গে সন্তুর বাবা আর বর্তমান সম্পাদক ।
আমরা যা বুঝলাম , এ জায়গাটা সরকারের না স্কুলের না অন্য কারোর জানা যায় নি । প্রোমোটার অনেকদিন ধরে কব্জা করার চেষ্টায় ছিল । কিন্তু ছেলেরা খেলছে দেখে অনেক চিৎকারের পরও ফিরে যেতে বাধ্য হয় ।
আর আমরা গাছের ফাঁকে ফাঁকে ফিল্ডিং সাজিয়ে , কিংবা বল পাশ দিয়ে দিয়ে আজও ফুটবল ক্রিকেট খেলি । আর এর জন্য আমাকে সবাই এত ভালবাসে যে আমি নিজে নিজে লজ্জা পেয়ে যাই । ভাবি এ আমি আমি তো ?

-০-০-০-০-

advertisement

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement