স্বাধীনতার ভাবটা কাউ সমীকরণ দিয়ে কোনভাবে বোঝানো যাবে না। যারা স্বাধীনতা যুদ্ধ দেখেনি তাদের মানসপটে নানান রকমের কল্পচিত্র অন্তরের চেতনাকে নিত্য জাগরুক রাখার চেষ্টা চলে। আর যুদ্ধ কালিন সময়েও তরুনরা কখন কিভাবে যে যুদ্ধে যাওয়ার মন্ত্রনায় দীপ্ত হয়েছেন তাও জানার বোঝার আমাদেরও শেষ নাই । সেই রকমই একজন যুবকের যুদ্ধে যাওয়ার হঠাৎ সিদ্ধান্ত কেমন করে তার ভাবনা মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছে, মায়ের পিছুটান ভুলে দেশের জন্য কিভাবে যে বেরিয়ে পড়েছিল তারই একটা কল্পচিত্র এই কবিতা...
-লেখার সাথে বিষয়ের সামঞ্জস্যতা ব্যাখ্যায় লেখকের বক্তব্য

লেখকের তথ্য

Photo
জন্মদিন: ১ ফেব্রুয়ারী ১৯৭৮
গল্প/কবিতা: ৪২টি

সমন্বিত স্কোর

৪.৩২

বিচারক স্কোরঃ ২.৫২ / ৭.০
পাঠক স্কোরঃ ১.৮ / ৩.০

বিজ্ঞপ্তি

এই লেখাটি গল্পকবিতা কর্তৃপক্ষের কোন সম্পাদনা ছাড়াই অথবা উপেক্ষণীয় সম্পাদনা সহকারে প্রকাশিত এবং কর্তৃপক্ষ এই লেখার বিষয়বস্তু, মন্তব্য অথবা পরিণতির ব্যাপারে দায়ী নয়।

keyboard_arrow_leftকবিতা - স্বাধীনতা (মার্চ ২০১৯)

আনতে গেলাম স্বাধীনতা
স্বাধীনতা

সংখ্যা

মোট ভোট প্রাপ্ত পয়েন্ট ৪.৩২

কাজী জাহাঙ্গীর

comment ১৪  favorite ০  import_contacts ৪৮০
চারিদিকে উত্তাল মার্চের উত্তাপ ভরা লেলিহান
পুড়ে পুড়ে খাঁক হয়ে যায় হায়েনাদের আক্রোশের দাবানলে
রাত্রির শীতল কোলে এলিয়ে থাকা বাঙালীর নিথর দেহ কোনখানে
কোনখানে চিৎকার, হঠাৎ দিগ্বিদিক ছোটাছুটি
চারিদিকে হিংস্র হায়েনার মর্টার গর্জন,নিরস্ত্র বাঙালীর
ঝলসে উঠার প্রয়াস, বাঁশের লাটির সাথে
খুজে নেয়া হাতুড়ি, শাবল খুন্তি…
কানের কাছে সর্বোচ্চ মাত্রায় বেজে উঠা আওয়াজ-
‘তোমাদের যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থাক
শত্রুর মোকাবেলা করতে হবে,
রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেবো…’ ।
পিছু হটার কাধের পোটলাটা ফেলে দিয়ে ঘুরে দাড়ায় যুবক
শর্ষে ফুলের রঙ ছড়িয়ে গেলেও চোখে
হঠাৎ যেন রক্তকণাগুলো তুমুল বেগে উঠে আসে
সূর্যের মত জ্বলজ্বলিয়ে উঠা চোখের পাতার কাছে।
দামাল যুবক কী আছে মুল্য তোর
মায়ের ভিটেয় ঘু ঘু চড়িয়ে দিলে পিশাচের দল
খুবলে খেলে রক্তাক্ত থাবায়, সবুজ ধান ক্ষেতের আলে
উড়িয়ে আসা তোর অষ্টাদশি বোনে আঁচল
যুবক কী আছে মূল্য তোর-- বিবেক দংশন করে বারংবার।
……
‘মা’ ‘মা’ আমি তোমার ভুমি সবুজে তুলে আনব
রক্তিম সূর্যের ভোর, আমি ছিনিয়ে আনব আমার
আদুরে বোনের নির্মল হাসির নির্মেঘ স্বাধীনতা
মা মা আমি গেলাম ‘মা’
আমি স্বাধীনতা আনতে গেলাম।

advertisement

আপনার ভালো লাগা ও মন্দ লাগা জানিয়ে লেখককে অনুপ্রানিত করুন

advertisement